লাইফস্টাইল

Skin Care: রূপচর্চায় ম্যাজিকের মতো কাজ করে নিম-তুলসির এই ঘরোয়া ফেস প্যাক, দাগ মুক্ত ঝলমলে উজ্জ্বল হবে ত্বক

সামনেই দোরগোড়ায় কড়া নাড়ছে পুজো! পূজা আসতেই বাঙালির স্কিন কেয়ার গেমের লেভেল আপ হয়। এখন প্রায় প্রত্যেক স্যালোতে অ্যাপোয়েন্টমেন্ট পাওয়া বেশ চাপের কেননা পুজোর মুখে সকলেই ভিড় জমাচ্ছেন পার্লারে। এই বছর করোনা সংক্রমনের জেরে পার্লারের চেয়ে বাড়ির ঘরোয়া উপায়েই রূপচর্চা করা বেশি উপাদেয়। সাথে পকেটেও টান পড়বে না অন্যদিকে আপনার ত্বকও ভালো থাকবে। আসুন জেনে নেয়া যাক ঘরোয়া রূপচর্চায় আইটেমগুলি আপনি ব্যবহার করলে আপনার ত্বকে সুফল পাবেন।

চন্দন কাঠ- ত্বকের ঝুলে যাওয়া, বলিরেখা, প্রদাহ এবং পচনশীলতা প্রতিরক্ষায় চন্দনের জুড়ি মেলা ভার। তাই সপ্তাহে অন্তত 3 দিন জলের সাথে চন্দন কাঠের গুঁড়োর পেস্ট মুখে ভালোমতো লাগালে আপনার ত্বক হবে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল এবং ঝকঝকে।

তুলসী পাতা- সর্দি, কাশি, জ্বর জ্বালা থেকে মুক্তি দেওয়ার পাশাপাশি আপনার ত্বকের ক্ষেত্রেও বেজায় সুফল দায়ী হচ্ছে তুলসী। তাই আপনার প্রত্যহ স্কিন কেয়ার রেজিমে অ্যাড করুন তুলসী পাতাকে। কারন তুলসির মধ্যে থাকা এন্টিব্যাক্টেরিয়াল প্রপার্টিস আপনার ত্বককে ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, ব্রণসমস্যা থেকে মুক্তি দেওয়ার পাশাপাশি আপনার ত্বককে প্রদাহ ও ব্ল্যাকহেডের সমস্যা থেকেও মুক্তি দেয়।

হলুদ- বাঙালি রান্না ঘরের একটি অন্যতম প্রয়োজনীয় এই আইটেমটি যুগ যুগ ধরে ভারতীয় নারীরা নিজেদের রূপচর্চার ক্ষেত্রে ব্যবহার করে আসছে। মা ঠাকুমাদের দেওয়া নানান ঘরোয়া টোটকাতে হলুদের ব্যবহার থাকে। হলুদের মধ্যে থাকা প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও প্রদাহ উপশমকারী প্রপার্টিস আপনার ত্বকের জেল্লা বাড়ানোর পাশাপাশি বার্ধক্য এবং ব্রণের সমস্যায় বিশেষ কার্যকরী হিসেবে কাজ করে।

নিম পাতা- ত্বকে কোনো রকম রোগের সংক্রমণ রুখতে প্রতিদিন স্নানের জলে নিমপাতা চুবিয়ে সেই জল ব্যবহার করার অভ্যাস করুন। এই অভ্যাস গড়ে তুললে আপনি আপনার ত্বকে হওয়া যেকোনো ধরনের প্রদাহ, অস্বস্তি, সংক্রমণ এবং জ্বালাভাব দূর করার পাশাপাশি আপনার ত্বকে যেকোনো ধরনের ভাইরাস ঘটিত, ব্যাকটেরিয়া ঘটিত, এমনকি ছত্রাক ঘটিত রোগ থেকে মুক্তি পাবেন।

জাফরান- জাফরান হলো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিনে ভরপুর। তাই এটি ছত্রাক নাশক হিসেবে মুখে ব্রনর সংক্রমণ ছাড়াও প্রদাহ কমাতে এবং ত্বকের জেল্লা বাড়াতে কাজে আসে। তাই যেকোনো ধরনের প্রসাধনীর মধ্যে জাফরানকে ইনগ্রিডিয়েন্ট হিসাবে ব্যবহার করা হয়।

Tags

Related Articles

Close