×

শেষ থেকে শুরু! দীর্ঘ ২৭ বছর পর প্রথম স্ত্রী দেবশ্রীর কাছে ফেরার ইচ্ছাপ্রকাশ করলেন প্রসেনজিৎ!

৩০ সেপ্টেম্বর বড় পর্দায় মুক্তি পেতে চলেছে দেব ও পুরো প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় অভিনীত কাছের মানুষ

বানিজ্যিক ছবি থেকে শুরু করে অন্য ধারার ছবি দেবীবরণ থেকে শুরু করে উনিশে এপ্রিল এই জুটি ঝড় তুলেছিল বড় পর্দায়। পর্দায় এই জুটির কেমিস্ট্রি যেমন মন ছুয়ে নিয়েছিল তেমনি বাস্তব জীবনেও এই জুটির প্রেম ছিল অন‍্যতম চর্চার বিষয়। সিনেমার গল্পের মতই ছিল প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় দেবশ্রী রায়ের জীবনের গল্প। বন্ধুত্ব প্রেম, পরিনতি, বিচ্ছেদ.. এভাবেই ভাঙা গড়ার খাতে বয়েছে তাদের জীবন। তবে নতুনকরে শেষ থেকেই কি শুরু হতে চলেছে আবার!

গোটা দুদশক পেরিয়ে গেছে প্রসেনজিত ও দেবশ্রীর বিবাহবিচ্ছেদের, মুখ দেখাদেখিও বন্ধ হয়েছিল। তবে পথ আলাদা হয়ে গেলেও মন থেকে যে আলাদা হতে পারেননি তারা তা সম্প্রতি স্পষ্ট হলো। বহু বছর ধরে ব্যক্তিগত জীবনের তর্কবিতর্ক এড়িয়ে যাওয়া “ইন্ডাস্ট্রি” মুখ খুললেন বিয়ে বিচ্ছেদের প্রসঙ্গে। এমনকি জানালেন কথা বলে মিটমাট করতে চান প্রসেনজিৎ খোদ।

আসলে ৩০ সেপ্টেম্বর বড় পর্দায় মুক্তি পেতে চলেছে দেব ও পুরো প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় অভিনীত “কাছের মানুষ”। সম্প্রতি কাছের মানুষের প্রচারে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মন খুলে জীবনের গোপন ইচ্ছের কথা জানালেন তিনি। এদিন তিনি জানিয়েছিলেন ছোটবেলার প্রেমের প্রথম বিয়ে ভেঙে দেড় বছর নিজেকে বন্দী করে রেখেছিলেন তিনি। এদিন তাই পুরনো স্মৃতি হাতড়ে অভিনেতাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল অতীতের কোন সম্পর্ক তিনি ঠিক করতে চান? আর এর উত্তরেই প্রসেনজিতের মুখে শোনা যায় প্রাক্তন স্ত্রীর প্রসঙ্গ।

নাম না নিয়েই অভিনেতা জানান “আমার জীবনে তো অনেক সম্পর্ক ভেঙেছে আবার গড়েছে। কিন্তু এই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে মনেহয় আমার প্রথম স্ত্রী যার সঙ্গে অনেকদিন কথা নেই দেখাও নেই, দেখা হয়নি বলেই কথা হয়নি। অথচ আমরা ছোটবেলার বন্ধু তো নিশ্চয়ই আমি চাইবো যে একবার দেখা করে ওই বন্ধুত্বের জায়গাটায় যেন চলে আসি।”

বিচ্ছেদ নিয়ে টেলিপাড়ার অন্দরে একটা সময় অনেক কানাঘুষো চলেছে, দুজন দুজনের থেকে দূরে সরেছেন কিন্তু এই বক্তব্য শুনে মনে হচ্ছে পুরনো বরফ এবার যেন গলছে।