×

প্রতিমাসে ঘরে বসেই Paytm থেকে আয় করুন ৩০ হাজার টাকা, এইভাবে করুন আবেদন

বছর কয়েক আগে পর্যন্ত যেখানে ইলেকট্রিক বিল, গ্যাসের বিলসহ দোকানে যাবতীয় কেনাকাটা, ব্যাংক ট্রান্সফার ইত্যাদির জন্য ক্যারি করতে হতো মানিব্যাগ। দিতে হতো ব্যাংকের লম্বা লাইন সেখানে বর্তমানে কেবলমাত্র বাড়িতে বসে ইউপিআই এর মাধ্যমে খুব সহজেই এই সমস্ত কাজ সম্পন্ন করতে পারেন সাধারণ মানুষেরা গুগল পে,পেটিএম, amazon.pay প্রভৃতি নানা অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে। তবে আপনারা কি জানেন পেটিএম ব্যবহার করে আপনারা খুব সহজেই বাড়িতে বসে মাসিক 30 হাজার টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারেন? ভাবছেন কীভাবে আসুন জেনে নেওয়া যাক!

ইনকাম পদ্ধতি

পেটিএম এর মাধ্যমে ইনকাম করতে হলে প্রথমত অনলাইনে আবেদনের মাধ্যমে আপনাকে সার্ভিস এজেন্ট আইডি নিতে হবে। অতঃপর পেটিএম এর অনবোর্ডিং দোকানদারদের দোকানে গিয়ে কিউআর কোড রেখে আপনাকে লাগাতে হবে কার্ড মেশিনের মত মেশিন এবং ফ্লাইট বুকিং,হোটেল বুকিং,ফোন রিচার্জ,বিদ্যুৎ বিল প্রভৃতির মাধ্যমে মাসিক 30 হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন।

আবেদনকারীর বয়স

18 বছরের উর্ধ্বে যেকোনো ব্যক্তি সার্ভিস এজেন্ট পদের জন্য আবেদন করতে পারেন। এক্ষেত্রে ন্যূনতম মাধ্যমিক পাস যোগ্যতা থাকতে হবে। এছাড়াও উচ্চমাধ্যমিক ও আরো উচ্চশিক্ষিতরা ওই পদের জন্য আবেদন করতে পারেন

আবেদন পদ্ধতি

প্রথমত আপনাকে পেটিএম এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে paytm.com/psa তে গিয়ে এ্যাপলাই নাও অপশনে ক্লিক করতে হবে। এরপর একটি এপ্লিকেশন ফর্মে আপনার নিজের নাম,অভিভাবকের নাম,বাড়ির ঠিকানা,রেজিস্টারড মোবাইল নাম্বার,আধার নম্বর, email-id,শিক্ষাগত যোগ্যতা,বয়স ইত্যাদি যাবতীয় তথ্য আপলোড করতে হবে। এরপর আপনার যাবতীয় তথ্য সম্বন্ধিত বায়োডাটা আপলোড করে পাসপোর্ট সাইজের ফটোস্ক্যান করে ফটোর জায়গায় ফটো এবং সিগনেচারের স্থানে সিগনেচার স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। পরবর্তীতে নিজস্ব যাবতীয় ডকুমেন্ট স্ক্যান করে ফর্মের সাথে সাবমিট করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে।

প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস

এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় যে সকল ডকুমেন্ট স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে সেগুলি হল বয়সের প্রমাণপত্র হিসেবে মাধ্যমিকের এডমিট কার্ড, আধার কার্ড,শিক্ষাগত যোগ্যতার ডকুমেন্ট স্ক্যান, নিজের যাবতীয় তথ্য দিয়ে তৈরি বায়োডাটা স্ক্যান, একটি পাসপোর্টসাইজ ফটো স্ক্যান।