বেড়ালকে কেন বাঘের মাসি বলা হয়? অধিকাংশ মানুষ বলতে পারবে না

Advertisement

বাঘ (Tiger) এবং বিড়াল (Cat) এই দুটি প্রাণী আমাদের সকলেরই চেনা। কথায় কথায় অনেকেই বিড়ালকে বাঘের মাসি বলে। কেন বাঘের থেকে ছোট এই প্রাণীটিকে বাঘের মাসি বলা হয়? যা অনেকেই জানেন না। তাই আজকের প্রতিবেদনে সেই বিষয়েই বিস্তারিতভাবে জানানো হবে। তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক বিড়ালকে কেন বাঘের মাসি বলা হয় সেই সম্পর্কে।

Advertisements

Advertisements

খবর রয়েছে, বাঘ (Tiger) এবং বিড়াল (Cat) এই দুটি প্রাণীর শারীরিক এবং বাহ্যিক উভয় বৈশিষ্ট্যই প্রায় একই রকম। গবেষণা বলছে বাঘের সাথে বিড়ালের প্রায় ৯৫ শতাংশ শারীরিক বৈশিষ্ট্য হোক বা জেনেটিক বৈশিষ্ট্যের মিল রয়েছে। চলুন জেনে নেওয়া যাক কি কি মিল রয়েছে বাঘের সাথে বিড়ালের।

পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে বিড়ালের শরীরে যে ডিএনএ (DNA) রয়েছে তার ৯৫.৬% বাঘের। এছাড়াও, লক্ষ্য করলে দেখবেন বাঘ (Tiger) যেমন লম্বা লাফ দিতে পারে, তেমন বিড়ালও ১২ হাত লম্বা লাফ দিতে পারে। এছাড়াও, বাঘের মতো বিড়াল (Cat) তরতরিয়ে গাছে উঠতে পারে।

অর্থাৎ বলাই যায় বাঘ (Tiger)-এর মতো ধূর্ত এবং চালাক প্রাণী বিড়াল (Cat)। বাঘ যেমন লুকিয়ে স্বীকার করে তেমন বিড়ালও বাঘের মতো লুকিয়ে স্বীকার করে। এমনকি শিকারের ওপর এমন ভাবে ঝাপিয়ে পড়ে সে আর বেঁচে ফেরত আসে না।

বিড়াল যদি একবার কারো টুটি চেপে ধরে তাহলে তাকে আর সে জীবিত ছাড়ে না। এছাড়াও আরো একটি বিষয় লক্ষ্য করলে দেখবেন, বাঘ (Tiger) রাত্রিবেলা স্বীকার করতে ভালোবাসে। সেরকম বিড়াল (Cat)-ও ঘন অন্ধকারের মধ্যেই স্বীকার করে। এইসব মিল থাকার জন্যই বিড়ালকে বাঘের মাসি বলা হয়। তাই এই খবর শোনার পর থেকে অনেকেই বিড়াল থেকে সতর্ক হয়ে যাবেন।

Related Articles