আন্তর্জাতিকনিউজ

ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর বিপদ, জলে তলিয়ে যাবে একাধিক দেশের বহু শহর, সতর্কর্তা NASA-র

যেই সুন্দর চাঁদকে আমার প্রতিদিন আমাদের আকাশে দেখি সেই শান্ত স্নিগ্ধ চাঁদই আমাদের জন্য হয়ে উঠতে চলেছে চরম বিপদের কারণ।আর মাত্র এক দশক আর তারপরেই চাঁদের খামখেয়ালিপনাই হয়ে উঠবে বিপদের কারণ। চাঁদ পৃথিবীতে ভয়ঙ্কর বন্যা ডেকে আনতে চলেছে এই শতাব্দীর তিনের দশকে।

পৃথিবীকে প্রদক্ষিণের সময় কক্ষপথে তার ‘টলোমলো পায়ে হাঁটা’র জন্য। এই শতাব্দীর তিনের দশকে ভয়ঙ্কর বন্যা ডেকে আনতে চলেছে চাঁদ। আর ১০ বছরের মধ্যে হতে চলেছে এই ঝড়। জানা যাচ্ছে সমুদ্র ও মহাসাগরগুলির জলস্তর অস্বাভাবিক ভাবে উঠে এসে ডেকে আনবে সেই ভয়াল বন্যা। এই বন্যা দেখা দেবে ঘন ঘন। আমেরিকা-সহ সমুদ্রোপকূলবর্তী বহু দেশের বহু শহর, গ্রামাঞ্চল কয়েক মাসের জন্য চলে যাবে জলের তলায়।

আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ‘নাসা’র তরফ থেকে এই উদ্বেগজনক ঘোষণা করা হয়েছে। ‘নেচার ক্লাইমেট চেঞ্জ’ নামের একটি আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান গবেষণা পত্রিকায় নাসার বিজ্ঞানীদের এই গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে।

রিপোর্টে জানানো হয়েছে, চাঁদ নিজের কক্ষপথে একটু ঝুঁকে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে আর নির্দিষ্ট সময় অন্তর ঝুঁকে থাকা অবস্থায় চাঁদ ‘টলোমলো পায়ে হাঁটে’ আর এর ফলেই ঘটবে এই বিপদ। চাঁদ যখন পৃথিবীকে করে ওই পথে একটি সাড়ে ১৮ বছরের একটি চক্র রয়েছে।এই সাড়ে ১৮ বছরের অর্ধেক সময় চাঁদের জন্য পৃথিবীর সব সমুদ্র, মহাসাগরে ভাটার চেয়ে জোয়ারের পরিমাণ ও প্রাবল্য বেশি হয়। অন্যদিকে বিপরীতদিকে ঘোড়ার সময় এর উল্টোটা হয়। সেই সময় জোয়ারের চেয়ে ভাটার পরিমাণ ও প্রাবল্য বেশি হয়।

চাঁদ এইমুহুর্তে কক্ষপথের যে পর্যায়ে রয়েছে তাতে পৃথিবীর সব জলসয়ে জোয়ারের চেয়ে ভাটার পরিমাণ ও প্রাবল্য একটু বেশি। কিন্তু এই শতাব্দীর তৃতীয় দশকে সেই অবস্থা বদলাবে। এইক্ষেত্রে প্রশ্ন এর আগেও তো কক্ষপথে প্রদক্ষিণের সময় এমন ঘটনা ঘটেছে তবে এবারই কেনো এমন ঘটনা ঘটবে! কেনো আমেরিকা-সহ সমুদ্রোপকূলবর্তী প্রায় সব দেশেই এই দুর্যোগ দেখা দেবে?

এই বিষয়ে নাসার মুখ্য প্রশাসক বিল নেলসন জানান,“এর জন্য একমাত্র দায়ী জলবায়ু পরিবর্তন, উষ্ণায়ন ও সমুদ্রের জলস্তরের দ্রুত উচ্চতা বৃদ্ধি।যা গত ৩০০ বছরে ইতিমধ্যেই রেকর্ড গড়ে ফেলেছে। নাসার তরফ থেকে জানায়, সমুদ্রোপকূলবর্তী শহরগুলিতে তিনের দশকে ভয়াবহ বন্যার পরিমাণ অন্তত ৩ থেকে ৪ গুণ বেড়ে যাবে। এই উষ্ণায়ন চলতে থাকলে সমুদ্রের জলস্তর আরও বাড়বে। তার সাথে যোগ হবে চাঁদের জন্য জোয়ারের পরিমাণ। নাসার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, শুধুমাত্র আমেরিকা নয় তারসাথে বিশ্বের প্রায় প্রতীকটি উপকূলবর্তী দেশ জলের তলায় থাকবে।

Tags

Related Articles

Close