বিনোদন

সেইসময় প্রসেনজিৎ ‘হাঁ’ করে দিলে আজ বলিউডে রাজ করতে পারতেন সালমান খান! এভাবে ভাইজানের কেরিয়ার বাঁচিয়ে ছিলেন বুম্বাদা

জনপ্রিয় পরিচালক ডেভিড ধাওয়ানের কাছ থেকে "মেইনে পেয়ার কিয়া" মুভির জন্য প্রসেনজিতের কাছে অফার এসেছিল

তিনি টলিউড,তিনিই ইন্ডাস্ট্রি! অবশেষে টলিউডের এই সিনিয়র মোস্ট অভিনেতা 59টি বসন্ত পার করে পা দিলেন 60তম বর্ষে। একসময় একা কাঁধে বাংলা ইন্ডাস্ট্রিকে অন্ধকারময় যুগ থেকে টেনে বের করেছেন এই অভিনেতা। হ্যাঁ,কথা হচ্ছে বুম্বাদা ওরফে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে। বাংলা ইন্ডাস্ট্রির উন্নতিকরণের শপথে নিজেকে সিদ্ধ করায় বলিউডের বড় বড় অফার ফিরিয়ে দিয়েছিলেন অভিনেতা। জানা যায়,বলিউডে তিনি যদি আজ কাজ করতেন তবে সালমান খানের জায়গায় মুম্বাই তথা সারা ভারতবাসী চিনত বুম্বাদাকে।

ইন্ডাস্ট্রিতে কান পাতলে শোনা যায় আশির দশকে যখন সর্বপ্রথম বার তরুণ প্রসেনজিৎ আত্মপ্রকাশ করে ছিলেন অভিনেতা হিসেবে এবং একের পর এক হিট ছবি উপহার দেওয়ার মাধ্যমে দর্শকদের মনোরঞ্জন করেছিলেন সেই সময়ে বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় পরিচালক ডেভিড ধাওয়ানের কাছে কাছ থেকে “মেইনে পেয়ার কিয়া” মুভির জন্য তার কাছে অফার এসেছিল। যদিও বাংলা ইন্ডাস্ট্রির প্রযোজকদের কথা ভেবে সেই অফার প্রত্যাখ্যান করেছিলেন বুম্বাদা।

পরবর্তীতে,এই মুভিতে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের পরিবর্তে সালমান খানকে কাস্ট করা হয় এবং বাকিটা ইতিহাস। তবে বলিউডের সাথে সম্পর্ক এত শীঘ্রই শেষ হয়ে যায়নি বুম্বাদার। পরবর্তীতে বেশকিছু হিন্দি ছবি এবং বাংলা ছবির হিন্দি রিমেকে কাজ করেছেন প্রসেনজিৎ। তবে ভক্তদের মতে আজ যদি বুম্বাদা টলিউডের পরিবর্তে বলিউডকে বেছে নিতেন তবে ক্যাটরিনা থেকে প্রিয়াঙ্কা প্রত্যেককেই বুম্বাদার হিরোইন হিসাবে পেতে আপামর ভারতীয়রা।

পরিচালক পীযূষ সাহা এদিন বুম্বাদার বলিউড প্রসঙ্গে বলেন,”কোন কিছুই কারো জন্য থেমে থাকে না। বোম্বাইতে তিনি যান নি ফলে বাংলা ছবির বিরাট উন্নতি হয়েছে। অন্যদিকে তিনি যদি চলে যেতেন তবে তার স্থানে বাংলা ছবিকে অন্য কেউ এগিয়ে নিয়ে যেত। বিনোদনের চাহিদা চিরন্তন। তাই কেউ না কেউ পরিপূরক হিসেবে তা পূরণ করতই!”

Related Articles

Back to top button