নিউজরাজ্য

শ্রাদ্ধের আগের দিন হেঁটে বাড়ি ফিরলেন ‘মৃত’ ব্যক্তি, তোলপাড় স্বাস্থ্যমহল

শ্রাদ্ধের আগের দিন বাড়িতে হেঁটে ফিরলেন মৃত ব্যক্তি।

এ যেন এক অবাক কান্ড! শ্রাদ্ধের আগের দিন বাড়িতে হেঁটে ফিরলেন মৃত ব্যক্তি। বাড়িতে ওই ব্যক্তির শ্রাদ্ধানুষ্ঠানের সমস্ত নিয়ম-কানুন চলছে। লোকজন আসছে। এই সমস্ত প্রস্তুতি চলাকালীন হঠাৎ করে বাড়ির ফোনে রিং বাজলো। বারাসাতের জি এন আর সি হাসপাতালের ফোন। ফোনের ওপাশ থেকে ফোনে কেউ বলছে, “আপনার রোগী সুস্থ হয়ে গিয়েছে, অ্যাম্বুলেন্সে করে তাঁকে বাড়ি পাঠানো হচ্ছে”।

আর এই কথা শুনে অবাক হয়ে গেছে পরিবারের লোক। আর এই কথা শুনে সবাই কিভাবে যে আনন্দ প্রকাশ করবে তা বুঝতে পারছিলেন না। আর ওই ব্যক্তির মৃত্যুর খবর পেয়েছিল হাসপাতালের তত্ত্বাবধানে। আর এই মৃত্যুর খবর শুনে তাঁর সৎকার করেছিল ছেলে। হবিষ্যি খেয়ে সমস্ত নিয়ম ও মেনে চলেছিল তার ছেলে। তবে এত কষ্টের মধ্যে হঠাৎ করে এরকম অবাক কান্ডে অল্প হলেও হাসি ফুটেছে পরিবারের মুখে। আর এরকম ঘটনা ঘটেছে বিরাটিতে।

খড়দহ থেকে বারাসাতের এক সংশ্লিষ্ট হাসপাতালে ১১ নভেম্বর ভর্তি করা হয় শিবদাস ব্যানার্জি নামে ওই করোনা রোগীকে। ১৩ নভেম্বর হাসপাতাল থেকে বলা হয় মারা গেছেন শিবদাস বাবু। আর করোনাতে মৃত্যু হয়েছে বলে দূর থেকে দেখানো হবে মৃতদেহকে, হাসপাতালের তত্ত্বাবধানে দাহ করা হবে। সেই অনুযায়ী সব কাজ হয়েছে।

তবে এই খানে ঘটেছে আরেক ঘটনা। যা শুনলে আরও অবাক হতে হবে। ওই সংশ্লিষ্ট হাসপাতালেই ভর্তি ছিলেন মোহিনীমোহন মুখার্জি নামে আরেক ব্যক্তি। হাসপাতাল থেকে রোজই ফোন করে খবর নেয় পরিবার। আর ফোনের ওপার থেকে প্রত্যেকবারই জানানো হয়, রোগী একটু একটু করে ভালো হচ্ছে। আর শেষপর্যন্ত তাঁকে ছুটি দেওয়া হয় শুক্রবার। আর সেদিনই ঘটে একদম অবাক ঘটনা।

রোগীকে বাড়িতে ফেরানোর জন্য অ্যাম্বুলেন্সে ওঠানো হলে রোগী অ্যাম্বুলেন্সের চালককে বলেন বিরাটি যাব, এদিকে মুখার্জীবাবুর বাড়ি পলতাতে। আর এরপরই সত্য ঘটনা বের হয়। জানা যায়, ১৩ নভেম্বর যিনি মারা গিয়েছিলেন তিনি হলেন মোহিনীমোহন মুখার্জি। আর অন্যদিকে, মুখার্জি পরিবারকে যে রোগীর সুস্থ হওয়ার খোঁজ দেওয়া হচ্ছিল তিনি ছিলেন করোনা জয়ী শিবদাসবাবু। আর এই ঘটনার পর উত্তর ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসনের কাছে রিপোর্ট তলব স্বাস্থ্য ভবনের। ইতিমধ্যেই ৩ জনের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। যারা এই কাজের জন্য দায়ী তাদেরকে কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

Tags

Related Articles

Close