×

ব্যবহার তো করেন, কিন্তু কখনও ভেবেছেন কি ফোনের এই ছিদ্রগুলী কেন থাকে? প্রায় ৯৯% মানুষই সঠিক উত্তর বলতে পারেননি

স্মার্টফোনে এমন অনেক অংশে রয়েছে যেগুলো আমরা দেখতে পেলেও তার কার্যকারিতা সম্পর্কে জানিনা

বর্তমানে টেকনোলজির অনেক উন্নতি ঘটেছে। যার ফলে এখন প্রত্যেকের হাতে একটি স্মার্টফোন থাকা আম ব্যাপার। আধুনিকতার সঙ্গে তাল দিতে দিতে সারা দুনিয়া এখন আমাদের মুঠোফোনে এসে হাজির হয়েছে। যেকোনো সমস্যার সমাধান পেতে আমরা হাতে তুলে নিই এই স্মার্টফোন। এখন প্রায় প্রত্যেকের কাছেই একটি স্মার্টফোন দেখতে পাওয়া যায়। তবে এই স্মার্টফোন সকলের কাছে থাকলেও এর অনেক ফিচারসের কার্যকারিতা সম্পর্কে আমরা অবগত নই।

1973 সালে মার্টিন কুপার নামক এক ব্যক্তি প্রথম মোবাইল ফোন তৈরি করেছিলেন। সেই সময় এই মোবাইল ফোনের দাম অত্যধিক বেশি হওয়ার কারণে এগুলি বিশেষ কাজের জন্য কেবলমাত্র ব্যবহার করা হতো। তবে এখন স্মার্টফোন প্রত্যেকটি ঘরে ঘরে, প্রত্যেকের হাতে দেখতে পাওয়া যায়। স্মার্টফোন আমাদের জীবনযাত্রাকে অনেক সহজ করে তুলেছে। তবে এই স্মার্টফোনের মধ্যে রয়েছে নানা অজানা ফিচারস। তেমনই এক ফিচারস সম্পর্কে জানাবো আপনাদের।

স্মার্টফোনে এমন অনেক অংশে রয়েছে যেগুলো আমরা দেখতে পেলেও তার কার্যকারিতা সম্পর্কে জানিনা। তেমনই একটি অংশ হলো ক্যামেরার লেন্স এবং ফ্ল্যাশ এর কাছে থাকা ছোট্ট ছিদ্র। সেই ছিদ্র আমরা সকলে লক্ষ্য করলেও তার কাজ সেই সম্পর্কে অনেকেই জানেন না। কিন্তু এই ছোট্ট ছিদ্রটি প্রত্যেকটি স্মার্টফোনেই লক্ষ্য করা যায়। কেউ কেউ এই ছিদ্রটিকে ভাবেন ক্যামেরা তো আবার কেউ ভাবেন কালো বোতাম। তবে এই ছিদ্রটির রয়েছে এক বিশেষ কার্যকারিতা।

এই ছোট্ট ছিদ্রটি হল আসলে একটি মাইক্রোফোন। তবে ফোনে থাকা বাকি দুটি মাইক্রোনের থেকে এই মাইক্রোফোনটির কাজ সম্পূর্ণ আলাদা। এই ছোট্ট মাইক্রোফোনটি ব্যবহার করা হয় শব্দ ক্যানসেল আউট করার জন্য। অর্থাৎ বাইরের বাড়তি শব্দ বাতিল করার জন্য। যখন কোন ব্যক্তি ভিডিও শুট করে থাকেন তখন এই মাইক্রোফোনটি বাইরের বাকি ব্যাকগ্রাউন্ড সাউন্ড কমিয়ে দেয়। সুতরাং এটি স্মার্টফোনের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ ফিচারস। এরকমই আরো নানান ধরনের ফিচারস রয়েছে, যা হয়তো আমরা জানি না।

Related Articles