নিউজরাজনীতিরাজ্য

নদীয়া TMC-তে ফের বড়সড় ভাঙন, দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিলেন তৃণমূল বিধায়ক অরিন্দম ভট্টাচার্য

ফের ভাঙন রাজ্যের শাসক দলে। শান্তিপুরের তৃণমূল বিধায়ক অরিন্দম ভট্টাচার্য এবার বিজেপিতে যোগ দিলেন। বুধবার দিল্লিতে শান্তিপুরের বিধায়ক গেরুয়া শিবিরের প্রাথমিক সদস্যপদ গ্রহণ করেন রাজ্য বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক ভুপেন্দ্র যাদবের উপস্থিতিতে। রাজ্য বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়ও উপস্থিত ছিলেন। দলত্যাগের কারণ হিসেবে অরিন্দমের দাবি, “রাজ্যে যুবকদের কোনও ভবিষ্যৎ নেই। শিল্প নেই, কর্মসংস্থান নেই। বারবার পরামর্শ দিয়েও কোনও লাভ হয়নি। আজ বাংলায় কাজ না পেয়ে অন্য রাজ্যে যেতে হচ্ছে রাজ্যের যুবকদের। রাজ্যে কাজ হচ্ছে না, শুধু রাজনীতি আর ব্যক্তিগত কুৎসা হচ্ছে। আমি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আত্মনির্ভর ভারতের স্বপ্ন সফল করতে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছি।”

একসময় রাজ্য যুব কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন অরিন্দম। কংগ্রেসের টিকিটে ২০১৬ সালে শান্তিপুর থেকে বিধায়ক হন। আরেক প্রাক্তন কংগ্রেস নেতা তথা তৎকালীন তৃণমূল প্রার্থী অজয় দে’কে হারিয়েছিলেন। পরে শান্তিপুরের বিধায়ক নিজেই তৃণমূলে যোগ দেন কংগ্রেস ছেড়ে। যদিও, তিনি বিধায়কপদ ত্যাগ করেননি দলত্যাগের পরও। এতদিন শাসকদলের হয়েই কাজ করছিলেন। তবে অজয় দে’র সঙ্গে সুসম্পর্ক তৈরি হয়নি তাঁর তৃণমূলে যোগদানের পরও। যার ফলে শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরমে ওঠে শান্তিপুরে। ক্রমে শাসকদলের ক্ষমতার বৃত্ত থেকে সরে যাওয়ার ফলেই অরিন্দম বিজেপিতে যোগদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে। তাছাড়া, ২০১৯ লোকসভায় শান্তিপুরে বিজেপি বিপুল ভোটে এগিয়ে ছিল। সেটাও দলত্যাগের কারণ হতে পারে বিধায়কের।

এদিকে, অরিন্দমের বিজেপি যোগের দিন শাসকদলের অস্বস্তি বাড়িয়েছেন আরও এক বিধায়ক। এদিন নিজের দলেরই একাংশের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন হুগলির উত্তরপাড়ার বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল। প্রবীরবাবুর অভিযোগ, “তাঁকে হারানোর জন্য দলেরই এক পঞ্চায়েত প্রধান নিজের এলাকায় উন্নয়নের কাজ করতে দিচ্ছেন না।” প্রসঙ্গত, আগেও উলটো সুর শোনা গিয়েছিল উত্তরপাড়ার বিধায়কের গলায়।

প্রসঙ্গত, বিধানসভা ভোট যত এগিয়ে আসছে, যেন তত চওড়া হচ্ছে শাসকদলের ফাটলও। এর আগে তৃণমূলের বেশ কয়েকজন নেতা এবং বিধায়ক গেরুয়া শিবিরে নাম লিখিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরে। যদিও রাজ্যের শাসকদল খুব একটা চিন্তিত নয় এই দলত্যাগে। 

Tags

Related Articles

Close