আন্তর্জাতিকনিউজ

মিলে যাচ্ছে বাইবেলের ভবিষ্যৎ বাণী, চলতি বছরে ঠিক এই ভাবেই ধ্বংস হবে পৃথিবী

চলতি বছর একটা দিনও যেন শান্তিতে কাটায়নি বিশ্ববাসী। করোনা আতঙ্কে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার জোগাড় সকলের। এরই মাঝে ফের খারাপ খবর বিশ্ববাসীর জন্য। বছর শেষে ভয়ঙ্কর গ্রহাণুর ‌সংঘর্ষ নিয়ে সতর্ক করল নাসা।

বাইবেলের উল্লেখযোগ্য সকল বিষয় যেন ফলে যাচ্ছে চলতি বছর। বাইবেল উল্লেখ করে অনেক ধর্মযাজক আগেই বলেছিলেন, এই বছর যা ঘটে চলেছে তা পৃথিবীর একটি যুগের বিনাশের লক্ষণ। ক্রমাগত যে দিকে এগোচ্ছে সব কিছু তাতে এরকমটাই মনে হচ্ছে সবার। এরই মাঝে সম্প্রতি নাসা একটি সতর্কতা জারি করছে সেখানে বলা হয়েছে, পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে একটি গ্রহাণু। এই গ্রহাণুর নাম দেওয়া হয়েছে ‘2018VP1’।

জানা যাচ্ছে, এই গ্রহাণু দৈর্ঘ্যে ছোট হলেও শক্তিশালী। এটির দৈর্ঘ্য ০.‌০০২ কিমি অর্থাৎ সাড়ে ছ’‌ফুটের কাছাকাছি দাঁড়াবে যখন এটি পৃথিবীর কাছে এসে পৌঁছে যাবে। তবে, নাসা জানিয়েছে, পৃথিবীর সঙ্গে এটির ধাক্কা লাগার সম্ভাবনা রয়েছে ০.‌৪১ শতাংশ। নভেম্বর মাসে, সেটির সঙ্গে পৃথিবীর ধাক্কা লাগতে পারে। আর এমনটাই যদি হয় তাহলে তা ঘটবে মার্কিন নির্বাচনের ঠিক আগের দিন। কারণ এখনও পর্যন্ত নভেম্বরের ৩ তারিখে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ঠিক হয়ে আছে। জানা যাচ্ছে, ২০১৮ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার Palomar Observatory–থেকে এই গ্রহাণু প্রথম চিহ্নিত করা হয়।

সূত্রের খবর, ভারত মহাসাগরের থেকে প্রায় ৩ হাজার কিলোমিটার ওপর দিয়ে এই গ্রহাণু রবিবার রাত ১২.‌০৮ মিনিটে চলে যায়। এটি আকারে বড় ছিল। অনেক দূর দিয়ে যাওয়ায় সংঘর্ষের কোনও সম্ভাবনা ছিল না। পৃথিবীর লোক বুঝতে না পারলেও বিজ্ঞানীরা সেই গ্রহের অস্তিত্ব টের পেয়েছেন। উল্লেখযোগ্য বিষয়, বাইবেল উল্লেখ করে কিছুদিন আগেই ধর্মযাজক বলেছিলেন, মহামারী, ঝড়, পঙ্গপাল হামলা ও গ্রহাণুর সঙ্গে পৃথিবীর ধাক্কা লাগার ঘটনা, এগুলি আসলে অনেকদিন আগে ধর্মগ্রন্থে উল্লেখ করা আছে। পৃথিবীর ধ্বংস যখন আসন্ন হবে, তখন এগুলি ঘটবে এই বছর সেসব কিছুই হচ্ছে। তাহলে এখন প্রশ্ন ভবিষ্যৎ কি পৃথিবীর! যদিও তা সময় বলে দেবে।

Tags

Related Articles

Close