নিউজরাজ্য

আদালতের নির্দেশ মেনেই হবে শিক্ষক নিয়োগ, দিনক্ষণ জানালেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়

নিয়োগ অধরা টেট এবং এসএসসি-তে উত্তীর্ণ হওয়া সত্ত্বেও। ফলে ধৈর্য্যের বাঁধ ভেঙেছে রাজ্যের প্রাথমিক ও উচ্চপ্রাথমিক শিক্ষক পদে চাকরিপ্রার্থীদের। তাঁরা বিক্ষিপ্ত আন্দোলনে নেমেছেন দ্রুত নিয়োগের দাবি তুলে। এই পরিস্থিতিতে রবিবার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় তাঁদের উদ্দেশে কড়া বার্তা দিলেন। এদিন তৃণমূল ভবনে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বললেন, “হাই কোর্টের নিয়ম অনুযায়ী এসএসসি চাকরিপ্রার্থীদের নিয়োগ হবে। হাই কোর্টের নিয়ম অনুযায়ী শিক্ষাদপ্তর এবং বোর্ড কাজ করছে। তাই কিছু করা যাবে না অযথা বিক্ষোভ দেখিয়েও।”

এদিন তিনি জানিয়ে দেন, আগামী ৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সাঁওতালি ভাষার (অলচিকি হরফ) ৪৭৫ জন শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করা হবে রাজ্যের স্কুলগুলিতে। শিক্ষামন্ত্রী ৩১ জানুয়ারির টেট নিয়ে জানান, ওই দিন রাজ্যের ২২ টি কেন্দ্রে অফলাইন পরীক্ষা নেওয়া হবে ১৬,৫০০ শূন্যপদে নিয়োগের জন্য। অর্থাৎ আবেদনকারীদের পরীক্ষাকেন্দ্রে গিয়ে পরীক্ষায় বসতে হবে। দুপুর ১ টা থেকে ৩:৩০ পর্যন্ত পরীক্ষা চলবে।

আড়াই লক্ষ আবেদনকারী এদিনের পরীক্ষায় বসতে চলেছেন। বিশেষ সুরক্ষা ব্যবস্থা থাকছে করোনা পরিস্থিতিতে অফলাইন পরীক্ষা নেওয়ার জন্য। তাই নির্দিষ্ট ২২ টি কেন্দ্রকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে অনেক আগে থেকেই যাতে তাঁরা স্যানিটাইজেশন-সহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাবতীয় পরিচ্ছন্নতার বন্দোবস্ত করতে পারে।

স্কুলে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া এগিয়ে চললেও প্রশ্ন থাকছে রাজ্যে স্কুল খোলা নিয়ে। পড়ুয়ারা কি ক্লাসরুমে গিয়ে পড়াশোনা করতে পারবে? এই প্রশ্নে রবিবার শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “স্যানিটাইজ করা হচ্ছে সব স্কুল। যেসব স্কুল আগে খোলা হয়েছিল, বন্ধ রয়েছে সেগুলো। এখনও অনলাইনে পঠনপাঠন চালানো হচ্ছে। পরিস্থিতি অনুকূল হলে স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে।” ফলে শিক্ষামন্ত্রীর কথায় এখনও কোনও আভাস পাওয়া গেল না স্কুল খোলা নিয়ে।

Tags

Related Articles

Close