দেশনিউজ

রিকশায় ব্যাগভর্তি সোনা ও টাকা ফেলে গেলেন যাত্রী, ব্যাগ ফিরিয়ে সততার নজির গড়লেন রিকশাচালক

সংবাদ সংস্থা পিটিআই-কে ওই সাব ইন্সপেক্টর কদম জানিয়েছেন যে তাঁরা ব্যাগটি খোলার সময় ১১ তোলা ওজনের সোনার গয়না, ২০ হাজার টাকা নগদ, সবকিছু মিলিয়ে প্রায় ৭ লক্ষ টাকার জিনিস এবং কিছু পোশাক পেয়েছেন।

এখনও আশেপাশে সৎ মানুষের দেখা মিলবে। যদিও সংখ্যায় কম, কিন্তু হারিয়ে যাননি সৎ ও পরোপকার করতে চাওয়া মানুষেরা। এবার সেরকম এক সৎ মানুষের দেখা মিলল পুনেতে। যিনি পেশায় রিকশাচালক এবং বয়স ৬০-র একটু বেশি। এই বয়সেও খুব কষ্ট করে সংসার চালান তিনি। কিন্তু সততার কাছে সর্বদাই উপরে তিনি। তাঁর নাম ভিট্টাল মাপারে। সোনা ও নগদ মিলিয়ে প্রায় ৭ লক্ষ টাকা পেয়েও ফিরিয়ে দিয়েছেন তিনি।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার এক দম্পতি কেশব নগর এলাকা থেকে ওই ব্যক্তি রিকশাতে ওঠেন এবং হাদপসর বাস-স্ট্যান্ডে তাঁরা নেমে যান। কিন্তু ভুলবশত তাঁদের সাথে থাকা ব্যাগটি ফেলে যান। তবে তিনি সেই ব্যাগ পুলিশের কাছে জমা দেন। ওই রিকশাচালক বলেন যে তিনি যাত্রীদের নামিয়ে দিয়ে চা খাবার জন্য বিটি কাওয়াদের দিকে এগিয়ে গিয়ে রিকশা পার্ক করেন। তখন তিনি দেখেন যে পিছনের সিটে একটি ব্যাগ পড়ে রয়েছে। তিনি ওই ব্যাগ না খুলেই সঙ্গে সঙ্গে সেটি সামনের পুলিশ স্টেশনের ইনস্পেক্টর বিজয় কদমের কাছে তা জমা দিয়ে আসেন।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই-কে ওই সাব ইন্সপেক্টর কদম জানিয়েছেন যে তাঁরা ব্যাগটি খোলার সময় ১১ তোলা ওজনের সোনার গয়না, ২০ হাজার টাকা নগদ, সবকিছু মিলিয়ে প্রায় ৭ লক্ষ টাকার জিনিস এবং কিছু পোশাক পেয়েছেন। তারপর হাদপসার থানায় যোগাযোগ করে তাঁরা জানতে পারেন যে যাদের ব্যাগ হারিয়েছিল ওখানেই তারা আছেন। হাদপসার পুলিশ আমাদের জানায় মাহবুব এবং শানাজ শাইখ ইতিমধ্যে তাদের নিখোঁজ ব্যাগের অভিযোগ থানায় এলে তাদের হাতে ব্যাগটি পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

পুলিশ কমিশনার সুহাস বাউছে রিকশাচালককে তাঁর এই কাজের জন্য অভিনন্দন জানিয়েছেন। ওই ব্যক্তির স্ত্রী ও একটি ছেলে রয়েছে। ছেলে একটি ছোট বেসরকারি সংস্থায় কাজ করে। কোনওরকমে তাঁদের সংসার চলে। ওই ব্যক্তি এই কাজ করতে খুশি হয়েছেন।

Tags

Related Articles

Close