দেশনিউজ

ইচ্ছামত নিতে পারবে ট্রেনের ভাড়া, বড় ঘোষণা রেল বোর্ডের

দেশের দরিদ্র মানুষের বেশিরভাগই আজও যাতায়াতের জন্য ট্রেনের উপরেই নির্ভর করেন।

এখন থেকে দেশে বেসরকারি সংস্থা ট্রেন চালালে ইচ্ছেমত ভাড়া নির্ধারণ করতে পারবে, শুক্রবার একথা জানিয়েছেন রেলবোর্ডের চেয়ারম্যান ভিকে যাদব। তিনি বলেছেন, “বেসরকারি সংস্থাগুলিকে ট্রেনের ভাড়া ঠিক করার জন্য অধিকার দেওয়া হবে। তবে এই একই রুটগুলি দিয়ে এয়ার কন্ডিশনড বাস ও প্লেনও চলবে। তাই ভাড়া ঠিক করার ক্ষেত্রে সে বিষয়গুলি মাথায় রাখতে হবে।” ভারতে অন্যান্য গণ পরিবহনের ভাড়ার থেকে রেলের ভাড়া তুলনামূলক কম। তাই রেলের ভাড়া বাড়লে সমস্যায় পড়বেন সাধারণ মানুষ।

দেশের দরিদ্র মানুষের বেশিরভাগই আজও যাতায়াতের জন্য ট্রেনের উপরেই নির্ভর করেন। তবে বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার ট্রেন চালানো থেকে শুরু করে স্টেশনের আধুনিকীকরণ, সব বিষয়ের বিনিয়োগে বেসরকারি সংস্থাগুলিকে আহ্বান করেছে। ইতিমধ্যেই বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা যেমন-অ্যালস্টম এসএ, বম্বার্ডিয়ার ইনকর্পোরেটেড, জিএমআর ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড এবং আদানি এন্টারপ্রাইসেস লিমিটেডে এই সংস্থাগুলি রেলে বিনিয়োগের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ভিকে যাদব নিজেই একথা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ভারতে প্রতিদিন ট্রেনে রোজ যত যাত্রী যাতায়াত করেন, সেই সংখ্যা অস্ট্রেলিয়ার জনসংখ্যার সমান। গত জুলাইয়ে ১০৯টি রুটে ১৫১টি ট্রেন চালানোর ব্যাপারে বেসরকারি সংস্থাগুলির দৃষ্টি আকর্ষণ করে সরকার। বেসরকারি সংস্থাগুলি৩৫ বছরের লিজে এই পরিচালন ভার নিতে পারবে। শুধু তাই নয়, নয়াদিল্লি ও মুম্বইয়ের মতো বহু রেল স্টেশনের আধুনিকীকরণের দায়িত্বও বেসরকারি সংস্থাকে দেবার জন্য ইচ্ছে প্রকাশ করেছিল কেন্দ্র।

রেলমন্ত্রকের হিসেব অনুযায়ী, বেসরকারি সংস্থাগুলি এগ্রো প্রকাশ করলে রেলে ৭৫০ কোটি ডলারেরও বেশি বিনিয়োগ হতে পারে। রেলের আধুনিকীকরণ প্রধানমন্ত্রীর কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ। তিনি জাপানের থেকে কম সুদে ঋণ নিয়ে ২০২৩ সালের মধ্যে দেশে বুলেট ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা করেছেন। এছাড়া লোকাল ট্রেনের গতি বাড়ানোর পরিকল্পনাও করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

Tags

Related Articles

Close