নিউজরাজ্য

পুজোর আগেই সুখবর, গৃহলক্ষ্মীদের মুখে হাসি ফোটালেন ‘কল্পতরু’ মমতা!

রাজ্যের মহিলাদের কথা ভেবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিয়ে এসেছেন লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প। এই প্রকল্পে রাজ্যের প্রত্যেক মহিলাকে প্রতি মাসে দেওয়া হবে হাত খরচা। ইতিমধ্যে এই প্রকল্পের অধীনে প্রায় কুড়ি লক্ষ আবেদনকারীর একাউন্টে টাকা ঢুকে গিয়েছে। ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর ছাড়া আরো বেশ কয়েকটি জেলায় রাজ্য সরকার প্রকল্পের টাকা একাউন্টে পাঠিয়েছে।

লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প শুরু হওয়ার পরেই জেলায় জেলায় প্রকল্পের আবেদনপত্র পূরণ করতে ভিড় চোখে পড়ে। দুয়ারের সরকারের প্রথম দিনেই প্রায় দশ লক্ষ মহিলা লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের জন্য আবেদনপত্র জমা দেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভা নির্বাচনে হ্যাট্রিক জয়লাভের পর তৃতীয় বার মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরেই ঘোষণা করেছিলেন বাড়ির মহিলাদের মাসিক হাত খরচা দেওয়ার কথা। এই প্রকল্পের নাম রাখা হয়েছিল লক্ষীর ভান্ডার। এই প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক সূচনা করা হয় আগস্ট মাসে। নিজের পাড়ায় বসে দুয়ারে সরকারের মাধ্যমে এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করেন মহিলারা।

এই প্রকল্পকে ঘিরে মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতন। ভোর রাত থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে এই প্রকল্পের লাভ নেওয়ার জন্য সমাজের বিভিন্ন স্তরের মহিলারা নিজেদের নাম নথিভুক্ত করতে ভিড় জমান । রাজ্য সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়, আবেদনকারীদের মধ্যে বাছাই করা হবে এবং নির্দিষ্ট শর্ত মেনে মহিলাদের হাত খরচা দেওয়া হবে।

রাজ্যের নারী ও শিশু কল্যাণ ও সমাজ কল্যাণ দপ্তর সূত্রে জানানো হয়েছে, রাজ্যের যে চার জেলায় অক্টোবরে উপনির্বাচন বাকি রয়েছে সেখানে এখনই লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের অর্থ দেওয়া হবে না সাধারণ মানুষকে। উপ নির্বাচন সম্পন্ন হয়ে গেলে উত্তর এবং দক্ষিণ 24 পরগনা, নদীয়া এবং কোচবিহারের মহিলারাও লক্ষীর ভান্ডারের টাকা পাবে। সেই ক্ষেত্রে তাদের একসঙ্গে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের টাকা নভেম্বরে দেওয়া হবে।

Tags

Related Articles

Close