আন্তর্জাতিকনিউজ

বাস্তবে পাওয়া গেল সোনার পাহাড়! রাতারাতি বড়লোক হতে ব্যস্ত আট থেকে আশি

সোনার দেশ এল ডো রা ডো কতবার যে এই নাম উঠে এসেছে বিভিন্ন গল্পে, সিনেমায় তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। সোনা দিয়ে তৈরি এক দেশ তবে তার হদিস এখনো কেউ পায়নি শুধু তার অস্তিত্ব শোনা গেছে গল্পে। তবে এবার হদিস পাওয়া গেল তেমন কিছুরই, তবে তা সোনার দেশ নই, সোনার পাহাড়।

জানা যাচ্ছে, সোনা দিয়ে তৈরি এক পাহাড়ের হদিস মিলেছে সুদূর কঙ্গোয়। আর রাতারাতি বড়লোক হতে এখন কঙ্গোবাসি ব্যস্ত সেই পাহাড় খোদাই করতে।

গোটা পাহাড়ের পাথুরে মাটির ৬০ থেকে ৯০ শতাংশ নাকি আছে সোনার উপাদান। জানা গেছে, এই পাহাড় অবস্থিত মধ্য আফ্রিকার দেশ কঙ্গোর দক্ষিণ কিভু প্রদেশে। চলতি বছর ফেব্রুয়ারি মাস নাগাদ লুহিনি এলাকার এই পাহাড়ের কথা প্রথম প্রকাশ্যে আসে। আর তারপরেই নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে হাজারো হাজারো মানুষ ছুটে আসে এই এলাকায়।

পাহাড়ের মাটি খোঁড়ার ভিডিও ছড়িয়ে পরে নেট মাধ্যমে। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে শাবল, বেলচা, গাইতি, যে যা পারছে তাই দিয়েই পাহাড়ের মাটি খুরছে। অনেকে খালি হাতেই মাটি সংগ্রহ করছেন। মানুষ মাটি খুঁড়ে পাহাড়ের গায়ে রীতিমত তৈরি করে দিয়েছেন এক গভীর খাদ। এমনই অবস্থা যে এলাকা জুড়ে তৈরি হয়েছে বিশৃংখল পরিস্থিতি।

এই পরিস্থিতিতে প্রশাসনের তরফ হস্তক্ষেপ করে খনন কার্য বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রপুঞ্জের তরফ থেকে গত বছর একটি রিপোর্টে বলা হয়েছিল হয়েছিল, আফ্রিকার কঙ্গোয় সে সমস্ত ধাতব পদার্থের যেই পরিমাণ খনন হয়, তার বেশির ভাগই নথিবদ্ধ করা হয় না।

অন্যদিকে কঙ্গোয় পাহাড় খনন প্রশাসনের তরফ থেকে বন্ধ হওয়ার পর, দক্ষিণ কিভুর খনিমন্ত্রী বেনান্ত বুরুমে মুহিগিরওয়া জানান, কঙ্গোর সেই পাহাড়কে ঘিরে এতটাই বাড়াবাড়ি তৈরি হয়েছিল যে ওই গ্রাম থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরবর্তী প্রদেশের রাজধানী বুকাবুতে মানুষের ভিড় বেড়ে বিশৃংখল পরিবেশে পরিণত হয়েছিল। তাই আগামী নির্দেশিকা পর্যন্ত প্রশাসনের তরফ থেকে এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে।

Tags

Related Articles

Close