আন্তর্জাতিকনিউজ

পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে অতিকায় গ্রহাণু, সংঘর্ষের প্রবল সম্ভাবনা জানাল NASA

এম্পায়ার স্টেট বিল্ডিং সমান আকৃতির একটি গ্রহাণু পৃথিবীর কাছ ঘেষে যেতে পারে। বুধবার এক সংবাদিক বৈঠকে নাসার বিজ্ঞানীরা এমনটাই জানিয়েছেন। তবে দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই। কারণ এই সাংঘাতিক ঘটনাটি এখনই নয় বরং ঘটবে বহু দেরিতে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন এই গ্রহাণুর নাম বেনু। এটি পৃথিবীর পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় পৃথিবীর সাথে তার সংঘর্ষের প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।

ক্যালিফোর্নিয়ার নাসা জেট প্রপালশন ল্যাবরেটরির বিজ্ঞানী এবং ইকারাস জার্নালে প্রকাশিত গবেষণাপত্রের প্রধান লেখক ডেভিড ফার্নোচিয়া এই বিষয়ে আলোকপাত করেন। তিনি বলেন, এমন নয় যে আমি বেনুকে নিয়ে আগের চেয়ে বেশি চিন্তিত। ডেভিড ফার্নোচিয়া আশ্বস্ত করে বলেন, এই সংঘর্ষের প্রভাবের সম্ভাবনা খুবই সামান্য।

বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, বেনুর গতিপথ বিশ্লেষণ করলে আগামী একশো বছরের মধ্যে সংঘর্ষের পরিমাণ নেই। তবে কবে এই সংঘর্ষ হওয়ার সম্ভাবনা? বিজ্ঞানীদের মতে আশঙ্কাজনক সময় ২১৩৫ সাল নাগাদ শুরু হচ্ছে। সেই বছরই পৃথিবীর গা ঘেঁষে বেরিয়ে যাবে বেনু। সেই সময় পৃথিবী থেকে বেনুর নিকটতম দূরত্ব থাকবে ১,২৫,০০০ মাইল বা আরও কাছাকাছি। যা পৃথিবীর থেকে চাঁদের দূরত্বের অর্ধেক। এই দূরত্বের বিষয়টিকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে নাসা। কারণ পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ বেনুকে পাস করার সঙ্গে সঙ্গে গুলতির ন্যায় নিক্ষেপ করবে। যদি এই নির্দিষ্ট সময়ে গ্রহাণুটি একটি নির্দিষ্ট দূরত্বে পৃথিবীর গা ঘেঁষে বের হয় (বিজ্ঞানীদের ভাষায় যা মহাকর্ষীয় কিহোল) সে ক্ষেত্রে এর প্রভাব ভয়ঙ্কর হতে পারে। তখন সেটি এমন একটি গতিপথে চলতে শুরু করবে যা প্রায় ৫০ বছর পর এসে পৃথিবীর সঙ্গে সংঘর্ষ হওয়ার সম্ভাবনা।

কিন্তু বেনু কোন পথে আসবে তা সঠিকভাবে বলা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। গ্রহাণুর গতিপথ নিয়ন্ত্রণ করে অন্যান্য বিভিন্ন প্রভাবও। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছে আশঙ্কাজনক হল ২ সেপ্টেম্বর ২১৮২ দিনটি। তবে সেই ক্ষেত্রে ০.০৩৭ শতাংশ থাকবে সংঘর্ষের সম্ভাবনা।

Tags

Related Articles

Close