বাঁকুড়া জনসভাতে গিয়ে নতুন কর্মসূচির ঘোষণা করলে" />বাঁকুড়া জনসভাতে গিয়ে নতুন কর্মসূচির ঘোষণা করলে" />বাঁকুড়া জনসভাতে গিয়ে নতুন কর্মসূচির ঘোষণা করলে" />বাঁকুড়া জনসভাতে গিয়ে নতুন কর্মসূচির ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নতুন এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে 'দুয়ারে দুয়ারে সরকা" />
×
Jannah Theme License is not validated, Go to the theme options page to validate the license, You need a single license for each domain name.

আগামী জুনের পরও মিলবে বিনামূল্যে রেশন, বাঁকুড়ার প্রশাসনিক জনসভা থেকে ঘোষণা মমতার

এদিন মুখ্যমন্ত্রী বেকারত্ব নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন। তিনি বলেন যে কেন্দ্র বিভিন্ন প্রকল্পের নামে নিয়োগ করছে।

বাঁকুড়া জনসভাতে গিয়ে নতুন কর্মসূচির ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নতুন এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে ‘দুয়ারে দুয়ারে সরকার।’ আর আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে এই প্রকল্পের আওতায় থাকা বিভিন্ন কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এই প্রকল্পের কাজ চলবে আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত। প্রতিদিন বেলা ১২টা থেকে বেলা ৩টে পর্যন্ত রাজ্যের ব্লকে ব্লকে প্রশাসনের তরফে ক্যাম্প করা হবে।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী বেকারত্ব নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন। তিনি বলেন যে কেন্দ্র বিভিন্ন প্রকল্পের নামে নিয়োগ করছে। তারপর যেই সেই প্রকল্প শেষ হয়ে যাচ্ছে, তখন ছেলেমেয়েরা বেকার হয়ে যাচ্ছে। কেন্দ্র ‘মাছের তেলে মাছ ভাজছে’ বলেও এদিন কটাক্ষের সুরে মন্তব্য করেন মমতা। এদিন তিনি এটাও বলেন, রাজ্যের স্কিমে যাঁরা চাকরি করেন, তাঁদের কারও চাকরি আমরা নষ্ট করিনি। বরং রাজ্য সরকার চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বাড়িয়েছে। জেনারেল প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বয়সের ঊর্ধ্বসীমা ৪০ বছর, ওবিসি ৪৩ বছর, তফশিলি জাতি-উপজাতির ক্ষেত্রে ৪৫ বছর করা হয়েছে। আমরা বাংলায় ৪০ শতাংশ বেকারত্ব কমিয়ে দিয়েছি।

এছাড়া এই দুয়ারে দুয়ারে সরকার প্রকল্প সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন যে মানুষ প্রশাসনের কাছে যে অভাব, অসুবিধা, নানা সমস্যার কথা তুলে ধরবে, তা সঙ্গে সঙ্গে সমাধান করতে হবে। মানুষ যেটা চাইবে, সেটা সঙ্গে সঙ্গেই মানুষকে দিতে হবে। যদি সেইসময় প্রশাসনের হাতে সেই সুযোগ না থাকে, তবে সেটার একটি তালিকা তৈরি করতে হবে। জনপরিষেবা সংক্রান্ত প্রকল্পগুলির নানা সুযোগ-সুবিধা আরও বেশি করে মানুষকে পাইয়ে দিতে হবে।

এগুলি ছাড়াও মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেছেন, ১২০০ লোকের কাছে আজ পরিষেবা দেওয়া হয়েছে। আগামী জুন মাস অবধি রাজ্যবাসী বিনামূল্যে রেশন পাবেন। এই সরকার থাকবে। বিনামূল্যে রেশন পরিষেবা ফের বাড়িয়ে দেওয়া হবে। আত্মবিশ্বাসের শুরে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। মুকুটমণিপুর, খাতড়া কী ছিল? এখন দেখুন কী হয়েছে! স্টেডিয়াম, হাসপাতাল, সব করেছি। শিল্পের কাজ এখানে চলছে। আগামী দুই বছরের মধ্যে আরও মানুষের কাছে পানীয় জল পৌঁছে যাবে। এছাড়া হাতির হানায় মৃত্যু হলে পরিবারের একজনকে হোমগার্ডের চাকরি ও ৪ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিচ্ছে সরকার।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেছেন, একটা মূর্তিতে মালা দিল বিরসা মুন্ডা বলে। বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙবে। আবার এসে মালা দিয়ে মিথ্যা বলবে। এটা হতে পারে না। আগামী দিনে বিরসা মুন্ডার জন্মদিনেও রাজ্যে ছুটি থাকবে বলে ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।