দেশনিউজ

আরও চারটি রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংককে বেসরকারি করার পথে কেন্দ্র! আশঙ্কায় গ্রাহকরা

ফেব্রুয়ারির শুরুতেই কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ সংসদে সাধারণ বাজেটে বেসরকারিকরণের কথা ঘোষণা করেছিলেন দেশের দু’টি রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংককে। কেন্দ্র সেই প্রক্রিয়ায় নেমে পড়েছে বাজেট অধিবেশন শেষ হওয়ার আগেই। একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ‌্যমে দাবি করা হয়েছে, মোদি সরকার আপাতত চারটি মাঝারি মাপের ব্যাংককে বেছে নিয়েছে বেসরকারিকরণের জন‌্য। এই প্রক্রিয়ার কথা স্বীকার করে নিয়েছে তিনটি সরকারি সূত্র বলে তাদের দাবি। বেসরকারিকরণের জন‌্য ব্যাংক অফ মহারাষ্ট্র, ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া, ইন্ডিয়ান ওভারসিজ ব্যাংক এবং সেন্ট্রাল ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া’কে প্রাথমিক তালিকায় রাখা হয়েছে বলে খবর। সংবাদসংস্থার দাবি, এই খবর জানিয়েছেন নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক সরকারি আধিকারিক। যে দু’টিকে এই চার ব্যাংকের মধ্যে চূড়ান্তভাবে বেছে নেওয়া হবে, সেগুলির বেসরকারিকরণ হবে ২০২১-২২ আর্থিক বছরেই।

বিরোধীরা সরব হয়েছে বাজেটে রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংক বেসরকারিকরণের প্রস্তাবের পরই। সম্পত্তি বেচে দেওয়া হচ্ছে সরকারি কোষাগার ভরতে বলে সরকারের তীব্র সমালোচনা করা হয়েছে। তবে কেন্দ্রের বক্তব‌্য, এই ব‌্যবস্থা সংস্থাগুলিকে আরও বেশি কার্যকর করার লক্ষ্যেই। ব্যাংক কর্মচারী সংগঠনগুলিরও চাপ রয়েছে কেন্দ্রের উপর। কারণ, তাদের দাবি, লক্ষ লক্ষ ব্যাংক কর্মচারীর ভবিষ‌্যতের উপর প্রভাব পড়বে সরকারের এই সিদ্ধান্তে।

একটি সূত্র জানিয়েছে, সরকার জল মাপতে প্রাথমিকভাবে ছোট বা মাঝারি মাপের ব্যাংককে বেছে নিচ্ছে বেসরকারিকরণের জন্য। বেসরকারিকরণের জন‌্য কিছু বড় ব্যাংককেও বাছা হতে পারে আগামী কয়েকবছরে। তবে সরকার নিজের হাতেই রাখবে দেশের বৃহত্তম রাষ্ট্রায়ত্ত্ব আর্থিক প্রতিষ্ঠান স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার বেশিরভাগ শেয়ার। সূত্রের খবর, শুরুতেই চারটি ব্যাংকের বেসরকারিকরণের পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে।

তবে বিশেষজ্ঞরা ব্যাংক কর্মচারী সংগঠনগুলির থেকে প্রবল বাধার আশঙ্কা করে বেসরকারিকরণের পথে হাঁটার কথা বলেছে ধাপে ধাপে। এদিকে, সাধারণ গ্রাহকদের ভোগান্তি বাড়ছে একাধিক ব্যাংকের সংযুক্তিকরণের ফলে। সংযুক্তিকরণের ফলে গ্রাহকের সংখ্যা হঠাৎ অনেকটা বেড়ে গিয়েছে বহু শাখায়। যার জেরে কর্মীদের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।

Tags

Related Articles

Close