×

বাজেট কম? পুজোর ছুটিতে নামমাত্র খরচেই ঘুরে আসুন কলকাতার কাছে নতুন এই সমুদ্রতটে

শহরের ব্যস্তময় কোলাহলের জীবন থেকে একটু দূরে নির্জনে সময় কাটাতে আদর্শ হলো এই জায়গা

সামনেই রয়েছে পূজার ছুটি আর পুজোর ছুটিতে ভ্রমণপিপাসু বাঙালির মন মোটেই ঘরে আটকে থাকে না,তাই পকেটে টান থাকলেও এখনই ট্রিপ প্ল্যানিং করতে বসে গিয়েছেন অনেকেই। তবে বাদ সাধছে সাধ্য! চিন্তা নেই মধ্যবিত্ত বাঙালির সাধ পূরণ করতে আজকে আমরা আমাদের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে নিয়ে এসেছি এমনই এক পর্যটন স্থানের হদিশ যেখানে কলকাতা থেকে ঢিল ছোড়া দূরত্বে বেশ নিরিবিলিতে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ঘেরা সমুদ্রসৈকতে কাটিয়ে আসতে পারবেন বেশ কিছুদিন।

কিভাবে পৌঁছাবেন-দর্শনীয় স্থান

কলকাতা থেকে ঢিলছোড়া দূরত্বে অবস্থিত বগুড়ান-জলপাই বিচে পৌঁছাতে বাসে কন্টাই নেমে সেখান থেকে টোটো করে বগুরান জলপাইয়ে পৌঁছে যাবেন পনেরো কুড়ি মিনিটে। এছাড়াও ট্রেনে কাঁথি নেমে চলে আসতে পারেন বগুরান। দরিয়াপুর লাইটহাউস,বঙ্কিমচন্দ্রের স্মৃতিবিজড়িত কপালকুণ্ডলা মন্দির,জুনপুট-বাঁকিপুট প্রভৃতি স্থানে ঘুরে আসতে পারেন।

দীঘার মতো মাতাল করা ঢেউ না থাকলেও জোয়ার ভাটার সাথে তাল মিলিয়ে কখনো কখনো সমুদ্র চলে আসে সী বিচের কাছে। বিচের ধারে মাচায় বসে নোনা মাতাল হাওয়া ও পিছনের ঝাউবনের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে মোটেই মন্দ লাগে না। লম্বা বিচে খেলা করে বেড়ায় লাল কাঁকড়া। সাইটসিন করার সেরকম জায়গা না থাকলেও শহরের ব্যস্তময় কোলাহলের জীবন থেকে একটু দূরে নির্জনে সময় কাটাতে আদর্শ হলো এই জায়গা।

কোথায় থাকবেন

বর্তমানে বগুড়ান-জলপাইতে থাকার জন্য একটিমাত্র রিসোর্ট রয়েছে মধ্যবিত্তের নাগালের একদমই ভেতরে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন সাগর নিরালা রিসোর্ট ঘর এবং কটেজ দুই পর্যটকদের জন্য অফার করে থাকে। এখান থেকে হেঁটেই সি বিচ- সমুদ্র পেয়ে যাবেন পর্যটকেরা। দীঘা মন্দারমনির ভিড় এড়াতে নির্জনে ছুটি কাটাতে আজই গন্তব্য বানিয়ে ফেলুন বগুড়ান-জলপাইকে!