×
Jannah Theme License is not validated, Go to the theme options page to validate the license, You need a single license for each domain name.

এবার মমতার পাশেই থাকবেন অমিত শাহ! কলকাতায় শুরু হলো বাড়ির খোঁজ

সঙ্গীতা বাগ : জোরকদমে শুরু হয়ে গেছে একুশের বিধানসভা ভোটের প্রচার। ভারতীয় জনতা পার্টির মূল লক্ষ্য এবার বাংলা দখল। সেইজন্যই খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ নিজের জন্য বাড়ি খুঁজছেন বাংলায়। ওনার পরিকল্পনা রয়েছে বাংলায় থেকে বাংলার মানুষদের উদ্বুদ্ধ করে বিধানসভা ভোট যুদ্ধে জয়লাভ করার। এপ্রিল মাস থেকেই ওনার বাংলায় যাতায়াত বাড়বে। এবং জানা গেছে অক্টোবর মাসে অমিত শাহ এর কার্যকর টিম এবং অফিস দুইয়েরই ঠিকানা হবে এই বাংলা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর জন্য কেমন বাড়ীর খোঁজ চলছে??? বিমানবন্দর, রাজারহাট সংলগ্ন এলাকাতে বাসস্থান, মন্ত্রীর পছন্দের তালিকায় অগ্রগণ্য।

অমিত শাহ- কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পাশাপাশি তিনটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন মন্ত্রীগোষ্ঠীর কর্ণধার। তিনি তাঁর সমস্ত কাজ মাথায় রেখেও বাংলাকে অনেকটা বেশি সময় দেবেন, এমনই পরিকল্পনা তাঁর। জানা গিয়েছে, এপ্রিল মাস থেকে মাসে তিন দিন এবং অক্টোবর মাস থেকে মাসে সাত দিন সময় পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের জন্য বরাদ্দ থাকবে।
এই কারণেই অমিত শাহ এর জন্য বাড়ি খোঁজা চলছে বাংলায়। যেহেতু এখান ওখানে যাতায়াতের প্রসঙ্গ খুবই গুরুত্বপূর্ণ সেই কথা মাথায় রেখেই বিমানবন্দর বা রাজারহাট সংলগ্ন এলাকাতেই মূলত বাড়ি খোঁজার কাজ চালু রয়েছে। কারণ অক্টোবর মাস থেকে মাননীয় মন্ত্রীর টিম এবং অফিস দুইই উঠে আসবে বাংলায়। এছাড়া দলীয় নেতাদের এটাও মাথায় রাখতে হচ্ছে ঠিক কোথায় বাড়ির অবস্থান হলে অমিত শাহের নিরাপত্তা বিষয়ক কোনো দুশ্চিন্তা থাকবে না।
নিরাপত্তার কথাই যখন উঠলো, তখন জানিয়ে রাখা ভালো যে অমিত শাহের সঙ্গে তাঁর নিরাপত্তারক্ষীরাও একই বাড়িতে অবস্থান করবে। ফ্ল্যাট ছাড়াও বড়ো বাড়িরও খোঁজ চলছে ইতিমধ্যেই। বিজেপি দলের সূত্রে খবর, অমিত শাহ একুশের বিধানসভা ভোটকে টার্গেট করেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ভোটের প্রচারের জন্য তিনি কলকাতা তো বটেই, রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় তিনি যাবেন, সেই সঙ্গে এটাও জানা গেছে যে প্রয়োজনে তিনি জেলাতেও রাত কাটাতে প্রস্তুত।

ভোট প্রচারের এই স্ট্র্যাটেজি তাঁর জন্য নতুন কিছু না, আগেও অর্থাৎ ২০১৬ সালের প্রথম থেকে তিনি এভাবেই লখনৌ তে বসবাস শুরু করেছিলেন এবং সাফল্যের সঙ্গে উত্তরপ্রদেশ ভোটযুদ্ধ জয় করেছিলেন। সেটি ছিল অমিত শাহ এর রাজনৈতিক কেরিয়ারে এক গুরুত্বপূর্ণ ধাপ। গুজরাটের বাইরে সেটিই ছিল তাঁর বড়ো পরীক্ষা। সেই মাইক্রো ম্যানেজমেন্টকে কাজে লাগিয়ে বাংলায় এবার তৃণমূলকে কিস্তিমাত দেবার চ্যালেঞ্জ বিজেপি নেতার।
অভিজ্ঞতাসম্পন্ন মহল সূত্রের খবর, অমিত শাহের সেনাপতি আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বুথস্তর পর্যন্ত সংগঠন তৈরী করতে বেশ আগ্রহী। পাশাপাশি জানা গেছে, অমিতের সেই দল বাংলার জন্য কাজ করবে দীনদয়াল উপাধ্যায় রোডের তরফ থেকে।