উত্তর দিকে মাথা দিয়ে ঘুমালে সত্যি কি কোন ক্ষতি হতে পারে? কি বলছে বিজ্ঞান

হিন্দুমতে উত্তর দিকে কেবলমাত্র মৃত্যুর পরে মানুষের মৃতদেহ শোয়ানো উচিত বলেই মনে করা হয়

সারাদিনের অক্লান্ত পরিশ্রমের পর বিছানায় গা এলিয়ে ঘুমের দেশে হারিয়ে যায় বেশিরভাগ মানুষ। হাড়ভাঙ্গা খাটুনির পর একটুখানি প্রশান্তি পেতে কে না চায়? তবে এই ঘুম নিয়েও অনেকে স্পর্শকাতর হয়। বাস্তুমতে ঘুমের দিক নির্ধারণ করে মানুষের শারীরিক সুস্থতা এবং ভাগ্য। অনেকের মতে উত্তর দিকে ঘুমানো শরীরের পক্ষে বিশেষভাবে অকল্যাণকর বলেই মনে করা হয়। তবে আদতেও কি তাই? আসুন জেনে নেয়া যাক!

ফেনসুই এবং বাস্তুমতে বলা হয়ে থাকে পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র যেহেতু উত্তর মেরু বরাবর কাজ করে থাকে তাই উত্তর মেরুর দিকে মাথা করে শুলে দুই মেরু মিলে গিয়ে অনিদ্রা,ঘুমের মধ্যে দুঃস্বপ্ন, শরীরের মধ্যে রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত এমনকি কোলেস্টেরলের বৃদ্ধি প্রমুখ নানা রোগ ডেকে আনে। ফলতঃ উত্তর দিকে অভিমুখ করে ঘুমানো কে এই দুই অভিমতে নিষিদ্ধ বলেই ঘোষণা করা হয়েছে।

অন্যদিকে,হিন্দুমতে উত্তর দিকে কেবলমাত্র মৃত্যুর পরে মানুষের মৃতদেহ শোয়ানো উচিত বলেই মনে করা হয়। তাই জীবিত অবস্থায় উত্তর মেরুর দিকে মুখ করে ঘুমানো অশুভ বলে মনে করা হয় শাস্ত্র মতে। তাই হিন্দুমতে পূর্ব দিকে মুখ করে ঘুমানো সর্বোত্তম কেননা এতে কোনো চৌম্বকীয় ক্ষেত্রের শরীরের উপর কাজ করে না।

তবে বিজ্ঞান কি বলছে? এক্ষেত্রে বিজ্ঞান কিন্তু বলছে অন্য কথা। জানা যায়,পৃথিবীর চুম্বকীয় ক্ষেত্র মানব দেহের ওপর কোনোরূপ প্রভাব ফেলতে পারে না। তাই উত্তর মেরুর দিকে মুখ করে ঘুমোলে কোন ধরনের প্রভাব পড়ে না মানব শরীরে এমনটাই জানাচ্ছে বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা। তাই উত্তর,দক্ষিণ,পূর্ব,পশ্চিম যেকোন দিকে নিজের সুবিধামতো সোয়া বাঞ্ছনীয় এমনটাই মনে করা হতো বৈজ্ঞানিক যুক্তি মতে!