লাইফস্টাইল

পেট্রোল পাম্পে তেল চুরি করার নতুন পদ্ধতি, দেখুন ভিডিও

আন্তর্জাতিক তেলের বাজার এর দামের তারতম্যের প্রভাব পড়ছে পেট্রোল ও ডিজেলের দামের ওপরেও, সব মিলিয়ে মধ্যবিত্তদের নাভিশ্বাস উঠছে। আর তারমধ্যেই কিছু অসাধু ব্যবসায়ী সুযোগ পেলে প্রতারনা করছে। এখানে শহরে প্রতিদিন হাজার হাজার বাইক গাড়ি চলছে আর সুযোগ পেলেই অনেক পেট্রোল পাম্পের মালিকরা পকেটে টাকা ভরতে গ্রাহকদের সাথে জালিয়াতি করেন আপনার অজান্তেই। আমাদের অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে যাতে এই ধরনের কাজ না করতে পারে তাই পেট্রোল চুরির কয়েকটি কৌশল সম্পর্কে অবগত হয়ে নিন।

1) অনেক সময় দেখা যায় যে আপনি হয়তো ৫০০ টাকার তেল ভরতে বলেছেন তখন পাম্পের কর্মচারী কথা শুনতে না পাওয়ার ভান করে ২০০ টাকা এন্টার করে তেল ভরতে শুরু করে। আপনি তাকে ভুল ধরিয়ে দিলে সে পুরনো মিটার যেখানে 200 টাকা এন্টার করা ছিল সেটা ডিলিট না করেই আবার 300 টাকা বসিয়ে দেন। এর ফলে আপনার মনে হল আপনি 500 টাকার তেল ভরেছেন কিন্তু আদতে ধরা হবে 300 টাকার তেল। তাই যদি আপনার তেল দুইবার ভরতে কর্মচারী এরকম উদ্যোগ নেন তাহলে তাকে নতুন করে রিডিং বসাতে বলুন।

2)অনেক সময় পেট্রোলপাম্পের মিটার এ কারচুপি থাকে, তাই কখনোই ৫০ ১০০ এর গুনিতকে পূর্ন সংখ্যায় তেল ভরাবেন না। তেল ভরালে ৫৫, ১২০, ২৫৪ টাকা এইরকম হিসাবে ভরাবেন এতে দামের সমপরিমাণ তেল পাবেন।

3) বাইক বা গাড়িতে তেল ভরতে গেলে অহেতুক গল্প করবেন না কর্মচারীর সাথে, সর্বদা মিটারের দিকে চোখ রাখুন। স্ক্রিনের রিডিঙ দেখে তেল ভরান। অনেক সময় দেখা যায় কর্মচারী ফিলিং পাইপের লিভার বন্ধ করে পুনরায় চালু করেন এতে গ্রাহকরা সমমূল্যের তেল পাননা। তাই এইরকম দেখলেই প্রতিবাদ করুন‌।

4) যতক্ষণ না রিডিং সম্পন্ন হচ্ছে ততক্ষণ তাকে ট্যাংক থেকে পাইপ তুলতে দেবেন না। কারণ যখন কর্মচারী মেশিনে ইনপুট দেন তখন আর তার পাম্পিং পাইপের লিভারে হাত দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। সর্বোপরি এই ধরনের কারচুপি রুখতে গেলে সর্বদা সতর্ক থাকতে হবে।

Tags

Related Articles

Close