লাইফস্টাইল

Skin Care: ত্বকের রঙ হবে ফর্সা ও উজ্জ্বল, বাড়িতেই বানিয়ে মাখুন মধুর ফেসওয়াশ, রইল সহজ পদ্ধতি

ত্বককে সুন্দর করে তুলতে বাজারে নামিদামি ব্র্যান্ডের ফেসওয়াশ এর অভাব নেই! যারা ক্লেইম করে থাকে আপনার ত্বককে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল এবং সুন্দর করে তোলার। তবে আপনি কি জানেন সেই সকল ফেসওয়াশ এর মধ্যে থাকা বিভিন্ন ক্ষতিকারক রাসায়নিক যথা মিথাইল প্যারাবেন প্রোপাইল প্যারাবেন ইত্যাদি লং টার্ম এ আপনার ত্বকের মারাত্বক ক্ষতিসাধন করে। তাই আজ থেকেই এইসকল বাজারজাত পন্যকে ত্যাগ করে বানিয়ে ফেলুন মধু এবং রিঠার এক চমৎকার ফেসওয়াশ।

সম্পূর্ণ ঘরোয়া উপায়ে বানানো এই ফেসওয়াশ টি যদি আপনি রোজ রাতে শুতে যাওয়ার আগে এবং সকালে ঘুম থেকে উঠে মুখে লাগান তবে আপনার ত্বকের রং উজ্জ্বল করতে আলাদা করে কোন ক্রিম এর ব্যবহার করতে হবে না। আমরা সকলেই জানি যে ত্বকের জন্য একটি অসাধারণ ময়েশ্চারাইজার এবং প্রতিরোধক উপাদান হল মধু। পাশাপাশি রিঠা অনেকে মাথা পরিষ্কার করার জন্য ব্যবহার করে থাকলেও আপনি হয়তো জানেন না এটি ত্বক পরিষ্কার করতে ভীষণ কার্যকরী। আসুন জেনে নেওয়া যাক এই চমৎকার ফেসওয়াস টি বানানোর পদ্ধতি এবং ব্যবহার।

আগের দিন রাত্রে বেলায় একটি পাত্রের মধ্যে রিঠা ভিজিয়ে রাখতে হবে পরের দিন সেটিকে ভালো মতো করে ঘষে তার মধ্যে পরিমাণমতো মধু যোগ করতে হবে। এরপর মিশ্রনটিকে ভালো মতো মিশিয়ে একটি কাচের বোতলের মধ্যে রেখে দিতে হবে। ব্যাস! তৈরি আপনার মধু এবং রিঠার ফেসওয়াশ। যখনই ফেসওয়াস টি ব্যবহার করবেন তখন সামান্য একটু জলের মধ্যে মিশিয়ে মুখে মেখে নিয়ে পরে তা ঘষে ঘষে উঠিয়ে দিন। শুধুমাত্র মুখেই নয় দেহের যে কোন অংশে যদি কালো দাগ ছোপ হয়ে যায় সেই অংশগুলিতে এটিকে লেবুর রসের সাথে ঘষে ঘষে লাগান ও পরে জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

তবে মনে রাখতে হবে ফেসওয়াস টি ব্যবহার করার পর কোন ধরনের সাবান ব্যবহার করা যাবে না। বাচ্চা থেকে প্রাপ্ত বয়স্ক সকলেই ফেসওয়াস টি ব্যবহার করতে পারেন তবে মাথায় রাখতে হবে বাচ্চাটির বয়স যেন 10 বছরের বেশি হয়। তবে আর দেরি না করে আজই বানিয়ে ফেলুন এই সম্পূর্ণ ঘরোয়া উপায়ে তৈরি ফেসওয়াশ। আর সকলকে চমকে দিন নিজের স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ত্বক দিয়ে।

Tags

Related Articles

Close