×

মাসে মাত্র ২০০ টাকা বিনিয়োগ করে রোজগার করুন ৩৬ হাজার টাকা, এইভাবে তুলুন ফায়দা

মাত্র ৫৫ টাকা জমিয়ে ৩৬০০০ টাকা করে ইনকাম। কীভাবে? জানুন এখনই ভারতের মতো দেশে কৃষিই হলো অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি। কৃষক উদয়স্ত খেটে ফসল তৈরি করেন। কিন্তু যতক্ষণ পর্যন্ত কৃষক শারীরিক ভাবে সক্ষম থাকে, ততক্ষণ সে কাজ করতে পারে। কারণ একজন কৃষক কে নিজের কায়িক জোরেই পরিবারের ভরণপোষণের দায়িত্ব পালন করে যেতে হয়। কিন্তু বৃদ্ধ হওয়ার পর তাকে আর্থিক সংকটে পড়তে হয়। এই কথা মাথায় রেখে, ভারত সরকার ২০১৯ সালের ১২ই সেপ্টেম্বর কিষাণ মানধন যোজনা শুরু করেন।

প্রধানমন্ত্রী কিষাণ মানধন যোজনার মাধ্যমে ৬০ বছরের বেশি বয়স্ক কৃষকদের কৃষকদের প্রতি মাসে ৩০০০ টাকার পেনশন দেওয়া। যাতে তাদের বার্ধক্য স্বাচ্ছন্দ্যে পার হয় এবং তাদের অর্থনৈতিক সংকটের সম্মুখীন হতে না হয়। এই প্রকল্পে, প্রথমে মাসিক কিস্তি জমাতে হয় এবং ম্যাচুরিটির পরে প্রতি মাসে মাসিক পেনশন দেওয়া হবে। ১৮ থেকে ৪০ বছর বয়সেরর মধ্যে যে কেউ এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারবেন। তবে একই পরিবারের স্বামী এবং স্ত্রীয়ের মধ্যে একজনই এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারবেন।এই প্রকল্পের সুবিধা নিতে পারবেন শুধুমাত্র সেই সমস্ত কৃষক যাদের জমির পরিমাণ ২ হেক্টরের কম।

কৃষককে ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত প্রতি মাসে মাত্র ৫৫ টাকা থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত সরকারকে অর্থ প্রদান করে যেতে হবে। তারপর ৬০ বছর পূর্ণ করার পর থেকে আমৃত্যু তাকে সরকার প্রতি মাসে ৩০০০ টাকা করে পেনশন প্রদান করে যাবে। এখানেই শেষ নয়, কৃষকের মৃত্যু হলে এই পেনশনের ৫০% অর্থ তার স্বামী বা স্ত্রী আমৃত্যু পেয়ে যাবেন।

এখন যদি আবেদনকারীর বয়স ১৮ বছর হয়, তবে তাকে ৬০ বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত প্রতি মাসে ৫৫ টাকা করে জমা করে যেতে হবে। আবার অপরপক্ষে আবেদনকারীর বয়স যদি ৪০ বছর হয়, তাহলে তাকে প্রতি মাসে ২০০ টাকা করে জমা করে যেতে হবে। প্রধানমন্ত্রী কিষাণ মানধন যোজনায় আবেদন করতে চাইলে সংশ্লিষ্ট কৃষকের আধার কার্ড, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এবং চালু মোবাইল নম্বর থাকা আবশ্যক।