বিনোদন

বাবার যৌন লালসার শিকার থেকে মাত্র ১১ বছর বয়সে ‘পর্ণস্টার’ তকমা! উরফির অতীত শুনলে চোখে জল আসবে

উরফি বলেন তার বাবা টানা দু বছর ধরে তার ওপর শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন চালিয়েছেন

তার ফ্যাশন মানেই বোল্ড স্টেটমেন্ট,তিনি মানেই খোলামেলা পোশাক কিংবা এক্সপেরিমেন্টাল লুক কখনো একের পর এক পোজ ভাইরাল কখনো আবার ছকভাঙা উদ্ভট পোশাকে ঝড় এককথায়তিনি মানেই পোশাক বিতর্ক। হ্যাঁ উরফি জাভেদ (Urfi Javed)একের পর এক পোশাক বিতর্কে বারবার জড়িয়েছেন তিনি,হয়ে উঠেছেন বি টাউনের অন্যতম বিতর্কিত সেলেব। এবার চর্চায় এই সেলেবেরই জীবনের অন্ধকার অধ‍্যায়।

নিজেকে বলি দুনিয়ায় প্রতিষ্ঠিত করতে পদে পদে ট্রোল হতে হয়েছে তাকে। তার পোশাক নিয়ে সারাক্ষণ চলে সমালোচনা। তবে এত কটাক্ষ হাসিমুখেই হজম করে নেন তিনি। বলা ভালো কারো ভাবনা-চিন্তার ধার ধারের না। কিন্তু এত মানসিক শক্তি কি করে করে পেলেন অভিনেত্রী তা জানেন কি! যাকে নিয়ে এতো ট্রোলিং তার জীবনের এই কঠিন পরিস্থিতি জানলে তার প্রতি বরং সহানুভূতি জন্মাবে।

অলওয়েজ হ্যাপি,ডোন্ট কেয়ার অ্যাটিটিউডের এই মেয়েটির জীবনে রয়েছে এক বেদনাদায়ক অন্ধকার অধ্যায়। বাড়ি থেকে পালিয়ে বলিউডে উরফির সফল হওয়ার এই লড়াই একেবারেই জলভাত ছিল না। ছোট থেকেই কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে লড়াই করতে হয়েছে তাকে। নিজের বাবার হাতে নির্যাতিতা হয়েছেন তিনি। বিগ বস ওটিটি(Big Boss OTT) খ্যাত এই অভিনেত্রী ছোটবেলায় বাবার যৌন লালসার শিকার হয়েছেন।

একটি সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন নিজের পরিবারে নিরাপদ ছিলেন না তিনি। উরফি বলেন তার বাবা টানা দু বছর ধরে তার ওপর শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন চালিয়েছেন। মাত্র ১১ বছর বয়সে তার ছবি এডাল্ট সাইটে(Adult site) পোস্ট করে দেওয়া হয়। মানুষ তাকে এত খারাপ নামে ডাকতো যে নিজের নামটাই ভুলে যেতে বসেছিলেন তিনি।

তার কথায়-” আমার ওপর যখন অত্যাচার করত তখন আমার কথা বলার অধিকারটুকু ছিল না। আমায় চিরকাল বলা হতো এই ধরনের মেয়েদের কথা বলার কোন অধিকার নেই সব সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র পুরুষরাই নিতে পারবে।” তবে এতো কঠিন পরিস্থিতিতেও কাউকে পাশে পাননি তিনি। তাই একপ্রকার বাধ্য হয়েই বাড়ি থেকে পালিয়ে আসতে হয়েছিল তাকে।

Related Articles