বিনোদনভাইরাল ভিডিও

বামাক্ষ্যাপার ‘তারা মা’কে থানার মধ্যেই ধর্ষণের হুমকি, প্রকাশ্যে কান্নায় ভেঙে পড়লেন অভিনেত্রী নবনীতা

প্রকাশ্যে থানার সামনে খুন ও ধর্ষণের হুমকি, বৃহস্পতিবার খোদ লাইভে এসে এমনটাই অভিযোগ করলেন অভিনেত্রী নবনীতা দাস। এই নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুর থেকেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সারা নেটপাড়ায়। ঘটনাটির সূত্রপাত ঘটেছে দুই গাড়ির সংঘর্ষকে কেন্দ্র করে। বৃহস্পতিবার দুপুরে জিতু কামাল ও তার স্ত্রী নবনীতা নিমতা দিয়ে ফিরছিলেন। সেই সময় একটি পণ্যবাহী গাড়ি তাদের গাড়িতে ধাক্কা মারে। আর তারপরেই পণ্যবাহী গাড়ির লোকজন তাদের ওপর হম্বিতম্ভি করতে থাকে, শুরু হয় তাদের মধ্যে বিবাদ। তারপরেই এই সংঘর্ষ বড়ো আকার ধারণ করে।

তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি এমন পর্যায়ে পৌঁছই যে সেলিব্রিটি দম্পতি দ্বারস্থ হন নিমতা থানায়। সেখানে এসেও সেই পণ্যবাহীর গাড়ির চালক নবনীতার ড্রাইভার এর সঙ্গে বতসা করতে থাকে। নবনীতা তার প্রতিবাদ করতে গেলে তাকেও হেনস্থা করা হয়। এমনকি তাকে পুলিশের সামনেই খুন ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হয়। এরপরেই নবনীতা থানা থেকে লাইভে আসেন এবং সমস্ত ঘটনা জানান।

তিনি আরো জানান, পুলিশের সামনেই এত কিছু ঘটনা ঘটে গেলেও পুলিশ কোনরকম পদক্ষেপ নেননি। পুলিশ অভিযুক্তদের কোনো কিছু না বলেই চলে যেতে বলেন। ওই লাইভেই জিতু পুলিশদের প্রশ্ন করেন, কেন তারা অভিযুক্তদের কিছু বললেন না। তার উত্তরে একজন পুলিশ জানান তিনি নাকি দুজনকেই সামলানোর চেষ্টা করছিলেন। তবে ভিডিওটিতে পুলিশদের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তারা। কিভাবে পুলিশের সামনেই তারা হুমকি দিতে পারে। আর পুলিশরাও কোনোরকম পদক্ষেপ না নিয়ে অভিযুক্তদের চলে যাওয়ার জন্য বলে।

ভিডিওটিতে অভিনেত্রীকে বারবার বলতে শোনা যায় তিনি ভীষণ ভয় পেয়ে আছেন কেননা তাকে বাইরে বেরোলেই দেখে নেওয়া হবে বলে এমনটাই হুমকি দেওয়া হয়েছে। অভিযুক্তরা সকলেই মদ্যপ অবস্থায় ছিলেন এমনটাই জানিয়েছেন সেলিব্রিটি দম্পতি। তবে পুলিশেরা এই বিষয়ে কোনো রকম পদক্ষেপ নেননি বলেই অভিযোগ করেছেন তারা।

তবে ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়াতে আসতেই সকলেই আঙুল তুলেছেন সাধারণ মানুষ এবং মহিলাদের নিরাপত্তার দিকে।অনেকের মতে যেখানে দিন দুপুরে সেলিব্রিটিরাও নিরাপদ নন, সেখানে সাধারণ মানুষ কিভাবে নিরাপদ থাকতে পারেন। অন্যদিকে প্রশাসনিক ভূমিকার দিকেও আঙ্গুল তুলেছেন অনেকেই।