বিনোদন

Prosenjit Chatterjee: বাংলা চলচ্চিত্রে শোকের ছায়া, দুঃখ প্রকাশ বুম্বাদার

আরো এক নক্ষত্রের পতন ঘটল বাংলা চলচ্চিত্রের আকাশ থেকে। চলে গেলেন বাংলা চলচ্চিত্রের খ্যাতিসম্পন্ন পরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত (Buddhadev Dasgupta)। আজ বৃহস্পতিবার ভোর ৬ টায় নিজস্ব বাসভবনেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন পরিচালক। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর।

বহুদিন ধরেই কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন পরিচালক, চলছিল ডাইলোসিস। জানা গেছে বার্ধক্যজনিত অসুস্থতার কারণেই মৃত্যু হয়েছে পরিচালকের। বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত পরিচালিত উল্লেখযোগ্য সিনেমা গুলি হল ‘নিম অন্নপূর্ণা’, ‘বাঘ বাহাদুর’, ‘লাল দরজা’, ‘মন্দ মেয়ের উপাখ্যান’, ‘তাহাদের কথা’, ‘স্বপ্নের দিন’, ‘ফেরা’, ‘দূরত্ব’ ও ‘কালপুরুষ’। বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত পরিচালিত পাঁচটি ছবি সেরা ছবি হিসেবে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছে। উত্তরা এবং স্বপ্নের দিন এই ছবি দুটির জন্য তিনি পেয়েছেন শ্রেষ্ঠ পরিচালকে হিসেবে জাতীয় পুরস্কার। এছাড়াও বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত বহু আন্তজার্তিক চলচ্চিত্র উৎসবেও সম্মানিত হয়েছেন ।বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত জীবনাবসানে বাংলা চলচ্চিত্রের এক অধ্যায়ের অবসান ঘটলো। তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে বাংলা চলচ্চিত্র মহলে।

বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের জন্ম হয় ১৯৪৪ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি পুরুলিয়ার আনারা গ্রামে। বাবা তারাকান্ত দাশগুপ্ত ছিলেন রেলের চিকিত্সক। স্কটিশ চার্চ কলেজ এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি নিয়ে পড়াশোনা করেন বুদ্ধদেব বাবু। অর্থনীতি অধ্যাপক হিসাবেই শুরু করেছিলেন কর্মজীবন, তবে সিনেমার প্রতি বরাবরই ছিল গভীর ভালোবাসা এবং আগ্রহ, বিশ্ব চলচ্চিত্রের ইতিহাস তাকে করেছিল ভীষণ ভাবে প্রভাবিত আর সেই ভালোবাসার টানেতেই সিনেমার সাথেই জড়িয়ে ফেলেছিলেন নিজের জীবনকে। ১৯৬৮ সালে বুদ্ধদেব বাবু ‘দ্য কন্টিনেন্ট অফ লাভ’ নামের ১০ মিনিটের তথ্যচিত্র তৈরি করেন। এবং তার পরিচালিত প্রথম ছবি ‘দূরত্ব ‘ মুক্তি পায় ১৯৭৮- সালে, আর প্রথম ছবিতেই জাতীয় পুরস্কার এর মঞ্চে বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত জিতে নিয়েছিলেন সেরা ছবির পুরস্কার। চলচ্চিত্রের পাশাপাশি সাহিত্যজগতেও ছিল বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের যথেষ্ট অবদান, তার কলমে উঠে এসেছে একাধিক কবিতা।

পরিচালকের মৃত্যুতে চলচ্চিত্র জগতের একাধিক গণ্যমান্যরা শোক জ্ঞাপন করেছেন। পরিচালক অপর্ণা সেন বলেন, উনি আমার খুব প্রিয় পরিচালক, আমি যত পরিচালক দেখেছি তার মধ্যে উনি অন্যরকম। ওনার ছবি আমার কাছে কবিতার মতন লাগতো। খুব মিস করবো। লকডাউন এর কারণে যোগ্য সন্মানটাও জানানো গেলো না।

অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় শোক জ্ঞাপন করে বলেন, আর এক জন ‘মাস্টার’ চলে গেলেন।

পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় বলেন, ব্যক্তিগতভাবে আমার খুব পছন্দের পরিচালক, ওনার কাজ দেখে অনেক কিছু শিখেছি। উনি ছবির একটা আলাদা ভাষা তৈরি করেছিলেন।

পরিচালক রাজ চক্রবর্তী টুইট করে লেখেন,অসংখ্য জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়েছেন। একজন কিংবদন্তি পরিচালক এবং বিখ্যাত কবি চলে গেলেন। তার পরিবার এবং পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জানাই।

অভিনেতা জিৎ টুইট করে লিখেছেন, চলচ্চিত্র জগতের অপূরণীয় ক্ষতি, আপনার কাজকে খুব মিস করবো।

পরিচালক অরিন্দম শীল টুইট করে লিখেছেন, আপনি দেশের এই প্রান্ত থেকে চলচ্চিত্র তৈরি করেছেন তার জন্য গর্বিত। আপনার আত্মার শান্তি কামনা করি।

অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় টুইট করেছেন, তার মৃত্যুতে এক অপূরণীয় ক্ষতি হল।

Tags

Related Articles

Close