বিনোদন

বেতন ছিল নামমাত্র, কলকাতা থাকাকালিন রাস্তার সস্তা ফুচকা খেয়ে দিন কাটাতেন ‘বিগ বি’ অমিতাভ বচ্চন

“হাম জাহা খাদে হতে হ‍্যায় লাইন ওহি সে শুরু হোতি হ‍্যায়”-এমন অ্যাটিটিউড পূর্ণ ডায়লগ তাকেই মানায়। কয়েক দশক পেরিয়ে গেছে তার অভিনয় জীবনের কিন্তু এখনো তিনি যখন পর্দায় উপস্থিত হন তখন চোখের পলক পড়েনা দর্শকদের। বলা হচ্ছে বলিউডের শাহেনশাহ, রুপোলি পর্দার ঈশ্বর অমিতাভ বচ্চনের কথা।

তবে বলিউডের রাজা হয়ে ওঠার এই কাহিনীটা মোটেও সহজ ছিল না। যদিও প্রতিটি সফল ব‍্যক্তির জীবনেরই এক অধ‍্যায় থাকে সেটা ‘লড়াই’। এই লড়াই ছিল অমিতাভের জীবনেও আর এই লড়াই, স্বপ্নপূরণের সাথে জড়িয়ে রয়েছে কলকাতার স্মৃতি। সম্প্রতি “কৌন বানেগা ক্রোড়পতি” মঞ্চে সেই পুরনো স্মৃতি সকলের সাথে ভাগ করে নিলেন বিগ বি।

এদিন প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে এসেছিলেন কলকাতারই মেয়ে গার্গী। প্রতিযোগিতায় “তাজ অফ দা রাজ” নামে মিউজিয়ামের ছবি দেখে চিনতে হত তাকে। ছবি দেখে এক মুহূর্তে “ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালকে” চিনে নেন গার্গী। আর সেই প্রশ্ন সূত্র ধরেই স্মৃতিতে ডুবে গিয়েছিলেন অভিনেতা।

জীবনের প্রথম থেকেই ক্যারিয়ারের জন্য কঠিন লড়াই শুরু করেছিলেন। একটা সময় তেমনি কলকাতার একটি জাহাজ প্রস্তুতকারী সংস্থায় কর্মরত ছিলেন বিগবি। স্বাভাবিকভাবে তাই বাংলার সাথে গভীর টান গড়ে উঠেছিল আর আজও কলকাতার স্মৃতি উজ্জ্বলভাবে অভিনেতার মনে রয়ে গেছে। অভিনেতা জানান ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল এবং ফুচকার প্রতি তার বহু পুরনো টান রয়েছে। ভিক্টোরিয়ার সামনে একটা দরজা রয়েছে যেখানে দুনিয়ার সেরা ফুচকা মিলতো। সেই ফুচকার স্বাদ আজও ভুলতে পারেন না তিনি।

কলকাতায় চাকরি করাকালীন নামমাত্র বেতন পেতেন আর ফুচকা ছিল সস্তা খাবার তাই এমন দিনও গেছে যখন কেবল ফুচকা খেয়ে পেট ভরিয়েছেন তিনি। অভিনেতার কথায় ” আমার মত লোক যারা মাসে ৩০০ ৪০০ টাকা মাইনে পেতো, যখন আমি সেখানে চাকরি করতাম খাওয়া-দাওয়ার অসুবিধা ছিল তখন ফুচকা খেয়ে কাটিয়ে দিতাম। ২আনা ৪ আনার ফুচকা খেতাম, দারুন ফুচকা মিলতো পেট ভরে খেতাম।” আজ প্রায় ৫০ দশক পেরিয় গেছে কিন্তু ‘কলকাতা’ অমিতাভের স্মৃতি জুড়ে রয়ে গেছে।

Related Articles